About Me

header ads

অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগে পৈশাচিক নির্যাতন, নারীনির্যাতনের বিরল চিত্র রাজ্যে!

 

ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ ত্রিপুরায় দীর্ঘ কয়েকদিন যাবৎ ভয়ানকভাবে নারী নির্যাতন, পুরুষতান্ত্রিকতা, ড্রাগস কারবারির উৎপাত তো বৃদ্ধি পাচ্ছেই, সেই সঙ্গে চলেছে টানা রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের উত্তপ্ত প্রতিক্রিয়া, মিছিল, আন্দোলন, প্রতিবাদ কর্মসূচি! মোদ্দা কথা একের পর ঘটনায় উত্তপ্ত ত্রিপুরা।

রাজ্য এখন নারীর বিরুদ্ধে অপরাধের স্বর্গ হয়ে উঠেছে। বুধবার সকালে খোয়াই শহরে মধ্যবয়সী এক মহিলাকে নৃশংসভাবে মারধর করা হয়। ভদ্রমহিলাকে মারধরের পর তাঁর উপর হয়রানি এখানেই শেষ হয়নি। এলাকার ক্যাঙ্গারু আদালত তাঁর উপর নির্মমভাবে অত্যাচার চালিয়েছে। বৈদ্যুতিক পোস্টে বেঁধে কেটে ফেলেছে মহিলার চুল। এই জঘন্য নরপিশাচরা কী মানুষের কাতারে পড়ে?

স্থানীয় কয়েকজনের মাতব্বরের অভিযোগ, উক্ত ভদ্রমহিলার সাথে নাকি এলাকারই এক ব্যক্তির প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাই দুজনকেই বৈদ্যুতিক পোস্টে বেঁধে পেটায়! বর্তমান অবস্থা মধ্যযুগীয় বর্বরতাকে হার মানাবে? আসলে এ কোন সভ্যতা? এই সভ্যতার সাথে পরিচয় নেই সচেতন-সাধারন মানুষদের! ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ভুক্তভোগী মহিলা অভিযোগ করেছেন যে তিনি তাঁর স্বামী এবং ছোট্ট মেয়ের সাথে বাড়িতে ঘুমোচ্ছিলেন। বুধবার সকালের ঘটনা এটি। এ সময়ই কয়েকজন লোক তাঁর বাড়ির কাঠের দরজা ভেঙে বাড়িতে প্রবেশ করে মহিলাকে রাস্তায় এনে ল্যাম্পপোস্টের সাথে বেঁধে রাখে!এবং অন্য একজনকেও ডাকা হয় ঘটনাস্থলে, দুজনকেই পোস্টের সাথে বেঁধে অত্যাচার করা হয়।

ভুক্তভোগী মহিলা নৃশংস ঘটনার বলি হয়েছেন। তিনি জানান, স্থানীয় কয়েকজন পুরুষতান্ত্রিক পুরুষের অভিযোগ, মহিলার সঙ্গে নাকি আরেকজনের অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। এই বলে তাঁদের উপর নির্যাতন করা শুরু করেন। এদিকে অর্জুন দাস নামক এক ব্যক্তি এই ঘটনা পুরো মোবাইল ক্যামেরায় বন্দী করে সোশ্যাল সাইটে পোস্ট করে দিয়েছেন।

মহিলা আরো জানাচ্ছেন, উক্ত নির্যাতনকারীরা তাঁকে থানায় যেতে পর্যন্ত বাধা দেয়। তাঁকে হুমকি দেয় পুলিশকে এ বিষয়ে কোন কথা না জানানোর জন্যে! অন্যথা নাকি তাঁর আরো ক্ষতি করা হবে। প্রশ্ন, যারা মহিলার উপর নির্যাতন করেছেন, তাঁরা যদি সৎ হয়ে থাকেন, তাঁদের পুলিশে ভয় থাকবে কেন? মহিলাকে কেনই বা তাঁরা হুমকি দেবেন এভাবে? তবে উক্ত মহিলা এলাকার ১২ জন যুবকের বিরুদ্ধে খোয়াই থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, এখনো পর্যন্ত একজনকেও গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য