About Me

header ads

রাজ্যের রাজ্যপাল 'আরএসএস কারখানা' থেকে এসেছেন; তিনি শিখণ্ডীঃ মানিক সরকার

ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন! তাঁকে এবার তিনি পুতুল এবং শিখণ্ডী বলেই সমালোচনা করেছেন।

তিনি এও বলেন, রাজ্যপাল আরএসএসের কারখানা থেকে এসেছেন, এবং তারা যা বলছে তিনি সেভাবেই পুতুলের মতো অভিনয় করছেন। অর্থাৎ রাজ্যপালকে নাড়াচাড়া করছে আরএসএস! মানিক সরকার এখানেই থামেননি! তাঁর বিস্ফোরক মন্তব্য, যে ব্যক্তির ব্যাকগ্রাউন্ড আরএসএস এবং যারা আরএসএসের আদর্শে বিশ্বাসী, তাঁরাই কেবল বিভিন্ন রাজ্যে রাজ্যুপাল পদে অধিষ্ঠিত!

উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি ত্রিপুরায় ক্রমবর্ধমান সাংবাদিক হামলার বিষয়টি নিয়ে মানিক সরকার ত্রিপুরার রাজ্যপালের সমালোচনা করেছেন। স্মরণীয় যে, গত ১১ সেপ্টেম্বর, সাবরুমে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব কিছু স্টেটমেন্ট দিয়েছিলেন, যা ত্রিপুরার বিভিন্ন সাংবাদিক সংস্থার মতে গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে হুমকি হিসেবে বিবেচিত হয়েছিল।

সাংবাদিক সংস্থাগুলি মুখ্যমন্ত্রীকে সেই স্টেটমেন্ট প্রত্যাহারের আবেদন করেছিলেন। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী তা করেননি। উল্টো তিনি মন্তব্য করেছিলেন, সাংবাদিকরা নিজেই একবার আয়না দেখুক! এরপরই ত্রিপুরার Assembly of Journalist (AOJ) রাজ্যপাল আর কে বাইসের কাছে একটি স্মারকলিপি জমা দেয়। এওজে-র প্রতিনিধি গভর্নরের সাথে সাক্ষাৎকালে তিনি তাদের আশ্বাস দিয়ে বলেছিলেন, গুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন। কিন্তু তাঁর কাজের শিথিলতা সাংবাদিকদের মনে আরো ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। রাজ্যপালের পক্ষ থেকে কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি। এমন একটি পরিস্থিতিতে এওজে আবারও রাজ্যপালকে একটি চিঠি পাঠান, কিন্তু রাজ্যপালের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

সোমবার মানিক সরকার পশ্চিম জেলা সিপিআইএম কার্যালয়ে বীরচন্দ্র মনু শহীদ দিবস উপলক্ষে এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। ১৯৮৯ সাল থেকে সিপিআইএম এই ১২ অক্টোবরকে 'বীরচন্দ্র মনু' শহীদ দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। এদিন শাসকদল বিজেপি-র ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে সিপিআইএম দলীয় কার্যালয়ে মানিক সরকার বলেন, ত্রিপুরায় বিজেপি ক্ষমতায় এসে সিপিআইএম ক্যাডার, কর্মী ও সমর্থকদের উপর আক্রমণ শুরু করেছে। তারা রাজ্য জুড়ে সিপিআইএম অফিসগুলিতে ভাঙচুর করছে। এখন আবার সাংবাদিকদের উপর আক্রমণ শুরু করেছে। রাজ্যে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই রাজ্যে ১২-১৪ জন সাংবাদিকদের উপর আক্রমণ করা হয়েছে। সব ঘটনা জেনেও পুলিশ সাংবাদিকের উপর হামলার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না।

মানিক সরকার সাংবাদিকদেরও খোঁচা দিতে এদিন ছাড়েননি। বলেন, আড়াই বছর আগে কিছু কিছু মিডিয়া বিজেপিকে সমর্থন করেছিল এবং পূর্বের বামফ্রন্ট সরকারের বিরুদ্ধে তাঁদের অবস্থান ছিল দৃঢ়। তবে মিডিয়ার বিরুদ্ধে বামফ্রন্টের ক্ষতিকারক কার্যকলাপ কী ছিল তা আমাদের জানা নেই

বিস্তারিতভাবে তিনি আরো বলেন, তাদের কিছু আর্থিক দাবি ছিল কিন্তু বামফ্রন্ট সরকারের আর্থিক অবস্থা তাদের সমস্ত দাবী নিবারণ করার মতো ছিল না, তবে আমরা মিডিয়ার বিপক্ষে ছিলাম না। বর্তমানের মুখ্যমন্ত্রী তো মিডিয়াকে হুমকি দিচ্ছেন। আবারও তিনি একইভাবে রাজ্যপালের প্রসঙ্গ টেনে এনে তাঁকে পুতুল এবং শিখণ্ডী বলে সমালোচনা করেন। আরো বলেন, বর্তমান সরকার তার সব প্রতিশ্রুতি রক্ষায় ব্যর্থ হচ্ছেন, আর তাই সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য