About Me

header ads

বিজেপি বিধায়করা দিল্লি অভিযান শেষে ফিরছেন রাজ্যে!

ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের অপসারণ দাবি করে ত্রিপুরা থেকে গিয়ে দিল্লিতে ঘাঁটি গেড়েছিলেন বিজেপির বেশ কয়েকজন বিক্ষুব্ধ বিধায়ক। অন্তত খবর ছিল তেমনই। তাঁদের নেতৃত্বে ছিলেন প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সুদীপ রায় বর্মণ। অবশেষে গতকাল ১৩ই অক্টোবর বিস্তর চেষ্টার পরে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা তাঁদের মধ্যে থেকে চার জন বিধায়কের এক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে দেখা করলেও আশ্চর্য জনক ভাবে সেই প্রতিনিধি দলে ছিলেন না সুদীপ রায় বর্মন এবং এ নিয়ে রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে জল্পনা তুঙ্গে!

রাজ্যের একাংশ বৈদ্যুতিক সংবাদ মাধ্যম এই বৈঠক নিয়ে যা প্রচার করছেন তা অনেকাংশেই প্রশ্নের মুখে। একদিকে যেমন কিছু সংবাদ মাধ্যম দলীয় কোন্দল প্রকাশ্যে এনে একটা অংশকে খুশি করতে ব্যস্থ ঠিক তখনই সংবাদ মাধ্যমের দাবীকে উড়িয়ে দিয়ে  বিধায়কদের একাংশ জানালেন, কোথায় বিদ্রোহ। তাঁরা কারও বিরুদ্ধেই অভিযোগ করতে আসেননি। নেহাতই জাতীয় সভাপতির সঙ্গে দেখা করে রাজ্যের পরিস্থিতি আলোচনা করতে এসেছিলেন তাঁরা।

যাঁদের সঙ্গে গতকাল বিজেপি সভাপতি নাড্ডা দেখা করেছেন তাঁরা হলেন, বিধায়ক রামপ্রসাদ পাল, আশিষ সাহা, সুশান্ত চৌধুরি ও পরিমল দেববর্মা। বৈঠক প্রসঙ্গে বিধায়ক রামপ্রসাদ পাল বলেন, তাঁরা কখনও বিদ্রোহ করেননি। কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাতেও আসেননি। জাতীয় সভাপতি ও অন্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সংখ্যা দেখা করে রাজ্যের পরিস্থিতি জানাতে এসেছিলেন। নাড্ডার সঙ্গে এক ঘণ্টার বৈঠক হয়েছে। তিনি সব সমস্যা মন দিয়ে শুনে সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন। দুর্গাপুজোর পরে কিছু বদল আসতে পারে।

অন্যদিকে উক্ত বৈঠকে উপস্থিত না থাকলেও দিল্লিতে সাংবাদিকদের দেওয়া সাক্ষাৎকারে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের নিন্দা করা দূরের কথা, উল্টে ভূয়সী প্রশংসা করেছেন সুদীপ রায় বর্মন এবং রাজ্যের একাংশ বৈদ্যুতিক সংবাদ মাধ্যমের দাবীকে এক কথায় নাকচ করে দেন তিনি। তাঁর দাবি, তিনি মোটেই বিদ্রোহী বা বিক্ষুব্ধ নেতা নন। মিডিয়ার একটি অংশ অপপ্রচার করেছে। সব গুজব। তাঁরা আজ ত্রিপুরা ফিরে আসছেন। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব ভাল কাজ করছেন। নাড্ডাজির নতুন টিম হওয়ার পর তাঁর সঙ্গে দেখা করতে এসেছি।

যদিও বিধায়কের প্রতিনিধি দলের মধ্যে আশ্চর্য জনক ভাবে সুদীপ রায় বর্মন না থাকায় জল্পনার অবসান অধরাই থাকছে। তবে বিজেপি ক্ষমতায় আসার এক বছরের মধ্যে সুদীপ রায় বর্মনকে মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। এরপর থেকে বিভিন্ন সময় ত্রিপুরা সরকারের কাজের সমালোচনায় সরব ছিলেন তিনি।

কিন্তু দিল্লি গিয়ে হঠাৎ করে তিনি মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের প্রশংসা শুরু করায় মনে করা হচ্ছে নাড্ডার বৈঠকে বিদ্রোহ দমনের কোনও দাওয়াই দেওয়া হয়েছে! জানা গিয়েছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা ত্রিপুরার বিধায়কদের সার্বিক বিষয় আলোচনার পর সাংঘটনিক বার্তা দিয়েছেন এবং বিধাওয়করা তাতে খুশি হয়েই বুধবার রাজ্যে ফেরার কথা।

অন্যদিকে, বিধায়ক রামপ্রসাদ ঘুরিয়ে ক্ষোভের কথাও বলে দেন। বলেন, আমাদের বক্তব্য সব সময়ই দলের পক্ষে। আমরা দলের শৃঙ্খলার প্রতি নিয়মনিষ্ঠ। কিন্তু বিজেপির আদর্শের বিরুদ্ধে যাওয়া কিছু বিষয় ও একজন ব্যক্তির নিজেকে দলের থেকে বড় মনে করে নেওয়া নিয়েই আমরা জানাতে এসেছিলাম।

দলীয় সূত্রে খবর, বিপ্লব দেবকে এখনই বদল করার সম্ভাবনা নেই। তবে মন্ত্রিসভায় নতুন মুখ আসতে পারে। এ দিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি মণিক সাহা ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছেন, দিল্লি গিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে দেখা করতে চাওয়া বিধায়কদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য