About Me

header ads

আরও ১১৮টি চীনা অ্যাপ ব্যান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র সরকার!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ এক এক করে চিনের কোমর ভাঙছে ভারত। এবার জনপ্রিয় গেমিং অ্যাপ পাবজি(PUBJ) সহ শতাধিক অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হয়েছে ভারতে। এনডিটিভির সূত্রে জানা যাচ্ছে, মোট ১১৮টি চীনা অ্যাপ ব্যান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নরেন্দ্র মোদি সরকার।
পাবজিসহ শতাধিক চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার এই সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করা হয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই সমস্ত অ্যাপ হচ্ছে দেশের সার্বভৌমত্বের পরিপন্থী। 
উল্লেখযোগ্য যে, গালওয়ান উপত্যকায় সেনা সংঘর্ষের জেরে ভারত জিজিটাল স্ট্রাইক করছে। প্রথম অবস্থায় বিশাল জনপ্রিয় টিকটকসহ ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করার পর পরই কেন্দ্রের সরকার জানিয়ে দিয়েছিল, এরপর নজরে রয়েছে আরো ২৫০টি চিনা অ্যাপ। এবার সে বার্তার প্রতিফলন দেখিয়ে দিল ভারত। নিষিদ্ধ করা হলো মোট ১১৮ টি অ্যাপ। এর মধ্যে ৮ থেকে ৮০ সকলের মধ্যেই জনপ্রিয় এই পাবজি। এখনো পর্যন্ত ভারত টিকটক, উইচ্যাট এবং ইউসি ব্রাউডারসহ মোট ২২৪ চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে। ভারতের দফায় দফায় ডিজিটাল স্ট্রাইকে চিনের বড়সড়ভাবে মেরুদণ্ড ভাঙ্গবে। ভারতে চিনের যে অ্যাপগুলো এখনো পর্যন্ত নিষিদ্ধ করা হয়েছে, সেগুলো আর ডাউনলোড করা যাবে না।
কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক সূত্রে জানানো হয়েছে যে, তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারায় চিনা অ্যাপগুলি ভারতে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।এছাড়াও, চিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এখানেই শেষ নয়।
তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক জানাচ্ছে যে, পাবজির মতো জনপ্রিয় অ্যাপগুলো নিয়ে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ আসছিল। অভিযোগের মধ্যে সামিল হয়েছিল গ্রাহকের তথ্য হাতিয়ে নেয়া, তথ্য হাতিয়ে সেগুলো নিয়ে অপব্যবহার করা প্রভৃতি। ফলে দ্রুত হাতে ফের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে ভারত সরকার। চিনকে একইঞ্চি জায়গা ছেড়ে দেয়া হবে না।
কেন্দ্রের দাবি অনুযায়ী, দেশের সুরক্ষা, সংহতি, নিরাপত্তা,সার্বভৌমত্ব রক্ষা করার বিষয়টির পাশাপাশি ভারতবাসীর তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাটা সবচেয়ে বেশি জরুরি ছিল। জনপ্রিয় টিকটক নিষিদ্ধের পর এবার তালিকার সবচেয়ে জনপ্রিয় গেমিং অ্যাপ পাবজি নিষিদ্ধ করা হলো। যে সব অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হয়েছে, সেই অ্যাপ-নির্মাতাদের তালিকায় আছে টেনসেন্ট, আলিবাবা, শাওমির মতো একাধিক চিনা সংস্থা। তবে পাবজি নিষিদ্ধ হওয়ার ফলে ছেলে-মেয়েরা যে এখন ঠিকভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হতে পারবে, এটি নিশ্চিত। কারণ অভিযোগ অনেক আগে থেকেই ছিল যে ঘাতক পাবজির নেশায় যুবক-যুবতীর জীবন নষ্ট হচ্ছে। কেউ কেউ আবার খেলতে গিয়ে হেরে গেলে অবসাদে ভুগে আত্মহত্যাও করেছেন, এমন ঘটনা প্রচুর আছে ভারতে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য