About Me

header ads

জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছেন রাজ্যের শিক্ষক সঞ্জয় দাস!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ ২০২০ শিক্ষাবর্ষে গোটা ভারতের মোট ৪৭ জন শিক্ষক জাতীয় পুরস্কারের জন্যে মনোনীত হয়েছেন সফলভাবে। এই ৪৭ জনের মধ্যে একজন শিক্ষক উত্তর পূর্ব ভারতের ত্রিপুরার। শিক্ষক সঞ্জয় দাস ২০২০ সালের জাতীয় পুরস্কারের জন্যে নির্বাচিত হয়েছেন। ৫ সেপ্টেম্বর, শিক্ষক দিবসের দিন তাঁদের হাতে সম্মানের এই পুরস্কার তুলে দেয়া হবে।
উল্লেখযোগ্য যে, প্রতিবছরই মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয় ৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবসের দিন শিক্ষকের হাতে এই পুরস্কার তুলে দিচ্ছেন। এবারও তার ব্যক্তিক্রম হবে না। তবে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো, মন্ত্রণালয় পুরস্কারের জন্যে বাছাই প্রক্রিয়ায় অনেক বদল এনেছে।
এর আগে দেশের প্রত্যেক রাজ্যের দায়িত্ব ছিল, জাতীয় পুরস্কারের জন্যে শিক্ষক নির্বাচিত করে সেই মতে তাঁর নাম কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা। রাজ্যের প্রদান করা এই তালিকার ভিত্তিতেই এতদিন জাতীয় পুরস্কার শিক্ষকদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে।
তবে গত বছর থেকে রাজ্য সরকারের এই মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় বদল এনেছে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়। অর্থাৎ রাজ্য সরকারের শিক্ষক মনোনয়ন করে নাম পাঠানোর পদ্ধতিটি বাতিল করে দেয়া হয়েছে। শুরু হয়েছে নতুন নিয়ম। অর্থাৎ শিক্ষকদের জাতীয় পুরস্কারের জন্যে নির্বাচিত করা হবে যাচাই-বাছাই ও পরীক্ষার মাধ্যমে। সারা ভারতে ৩৬ রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ও ৭ টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা তাঁদের সমস্ত তথ্য সংযোগ করে অনলাইনে জাতীয় পুরস্কারের জন্যে আবেদন করেছিলেন। চলতি বছর প্রাথমিকভাবে মোট ১৫৩ জন শিক্ষককে চূড়ান্তভাবে যাচাই করার জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচন করা হয়েছিল। প্রক্রিয়া যদিও কিছুটা জটিল করে দেয়া হয়েছে। তবে এই প্রক্রিয়াকে ইতিবাচক দিকেই নিয়েছেন সচেতন মানুষ।
শিক্ষকরা অনলাইনে আবেদন করার পর রাজ্য শিক্ষা বিভাগের তরফ থেকে নির্বাচন করে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ে একাধিক নাম পাঠানো হয়েছে। পরবর্তীতে জাতীয় পুরস্কারের জন্যে কোন শিক্ষক মনোনীত হবেন, সেই চূড়ান্ত নির্বাচন কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের জুরি বোর্ড করেছে।
উল্লেখযোগ্য যে, ত্রিপুরা শিক্ষা বিভাগ রাজ্যের মোট ৩ জন শিক্ষকের নাম কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছিলেন। এঁদের মধ্যে একমাত্র মনোনীত হয়েছেন সঞ্জয় দাস। ত্রিপুরার গৌরব শিক্ষক সঞ্জয় উনকোটি জেলার কৈলাশহরের টিলাবাজার শ্রেণি দ্বাদশ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক। তিনি উনকোটি জেলার কুমারঘাটের সুকান্ত পল্লী এলাকার বাসিন্দা।
বলা বাহুল্য, সঞ্জয় দাস গত বছরও রাজ্যের দ্বারা নির্বাচিত হয়ে কেন্দ্রীয় জুরি বোর্ডের মুখোমুখি হয়েছিলেন, কিন্তু সফলতা আসেনি। ২০২০ সালে সফলভাবে অনলাইন ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি। তাঁর গৌরবে গৌরবান্বিত ত্রিপুরা। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবসের দিন নির্বাচিত শিক্ষকদের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে পুরষ্কার তুলে দেবেন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য