About Me

header ads

কৃষি বিলের বিরুদ্ধে রাজ্যের বাম দলগুলির বিক্ষোভ!

ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাস করা নিয়ে তীব্র প্রতিবাদ চলছে ভারতে! পশ্চিমবঙ্গ, পঞ্জাব, হরিয়ানা, ত্রিপুরা উত্তাল হয়ে উঠেছে প্রতিবাদে। কিশান সংঘর্ষ সমন্নয় সমিতির নেতৃত্বে বিভিন্ন বাম দল এবং কৃষক সংগঠনের নেতৃত্বে রাজধানী আগরতলায় এক বিশাল সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

উচ্চকক্ষে মোদী সরকারের অধীনে গৃহীত কৃষি বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রকাশ করে হাজার হাজার আন্দোলনকারী এই প্রতিবাদে যোগ দেন। হাজার হাজার মানুষ কৃষক বিরোধী বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন।

ত্রিপুরায় আজ বাম দলগুলি বিশেষত সিপিআইএম রাজ্যজুড়ে বিশাল প্রতিবাদ কর্মসূচির আয়োজন করেছে। ত্রিপুরায় কমপক্ষে ৪০ টি স্থানে তারা ব্যাপক প্রতিবাদের আয়োজন করে। প্রতিটি জায়গায় হাজারো সমর্থককে সংগঠিত করেছে।

এদিকে আগরতলায় সিপিআইএম সমর্থক ও শ্রমিকরা প্যারাডাইজ চৌমুহনীতে আধঘন্টার জন্যে সড়ক অবরোধ করে রাখে। নেতা অমিতাভ দত্তের নেতৃত্বে সিপিআই-এম দলীয় কার্যালয় থেকে একটি বিশাল সমাবেশ শুরু হয়ে ভগত সিং স্ট্যাচুর কাছে গিয়ে শেষ হয়। সমাবেশটি কৃষি বিলের বিরুদ্ধে জোরালোভাবে আওয়াজ তোলে এবং বিলটিকে কৃষক বিরোধী বলে উল্লেখ করে।

আগরতলায় পুলিশ বিক্ষোভকারীদের থামানোর চেষ্টা করে, কিন্তু বিক্ষোভকারীরা সুরক্ষা কর্মীদের ধাক্কা দিয়ে এগিয়ে যায়। তাঁদের মুখে বিজেপি ও মোদী বিরোধী স্লোগান। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে ব্যানার ও পোস্টার প্রদর্শন করে। সিপিআইএম নেতা বাদল চৌধুরী প্যারাডাইজ চৌমুহনীতে এদিন বলেন, কেন্দ্রের সরকার যেভাবে সংসদে তিনটি কৃষি বিল পাস করেছে তা সংসদীয় গণতন্ত্রের ধ্বংস করা ছাড়া আর কিছুই নয়।

আরো বক্তব্য, বিরোধী সাংসদ সদস্যদের সাসপেন্ড করে বিজেপি সরকার মনে করছে বিরোধী দলকে চুপ করিয়ে দেবে, তা হবে না কোনভাবেই। অল ইন্ডিয়া ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেস, ন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেস, ভারতীয় ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, হিন্দ মজদুর সভা, অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ট্রেড ইউনিয়ন সেন্টার এবং ট্রেড ইউনিয়ন সমন্বয় কেন্দ্র সহ দশটি কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নও তাদের সমর্থন দেখিয়েছে।

পবিত্র কর বলেন, এই আইন ভারতীয় কৃষিকাজ এবং আমাদের কৃষকদের ধ্বংস করে ফেলবে। এদিকে, কৃষি বিলের বিরুদ্ধাচরণ করে বৃহত্তর কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। প্রদেশ কংগ্রেস ত্রিপুরায় শাসক জোটের বিরুদ্ধে চাপ বাড়ানোর জন্যেই এই কার্যসূচি পালন করবে।

আগামিকাল ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে কংগ্রেস আন্দোনলে কাঁপাবে। একথা জানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি আইনজীবী পিযূষকান্তি বিশ্বাস!

বাম দলগুলি তাদের সমস্ত রাজ্য ইউনিটকে কেন্দ্রীয় সরকারকে এই আইনগুলি প্রত্যাহার করতে বাধ্য করার জন্যে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সাথে পরামর্শক্রমে রাজ্য পর্যায়ে প্রতিবাদ কর্মসূচির আহ্বান জানায়।

উল্লেখযোগ্য যে, কৃষি বিলের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার পাশাপাশি এদিন সরকারি সম্পদের বেসরকারীকরণ বন্ধ করার, করোনাকালে ছয় মাসের জন্য মাথাপিছু ১০ কেজি রেশন সরবরাহ করার দাবিও উঠেছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য