About Me

header ads

বিজেপি-তে জাতীয় স্থরে রদবদলে আশার আলো দেখছেন রাজ্য বিজেপির কর্মিরা!

ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ রাম মাধবকে উত্তর-পূর্ব এবং জম্মু ও কাশ্মীরের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিজেপির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এত দিন তিনি এই দুই অঞ্চলের দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়াও সরানো হল উমা ভারতী, শিবরাজ সিং চৌহান, রাম মাধব, পুনম মহাজন, পি মুরলীধর রাও এবং অনিল জৈন‌‌সহ আরও কয়েকজন নেতাকে।

বিজেপির জাতীয় সভাপতি জে পি নড্ডা গঠিত নতুন কমিটিতে রাম মাধবকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। ‌টিম‌‌নাড্ডা‌য় গুরুত্বারোপ করা হয়েছে তরুণ, মহিলা এবং অভিজ্ঞ নেতাদের। রাম পুরো উত্তর-পূর্বের দিক থেকে রাম মাধব একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন। তবে পদ হারানো মাধবকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় আনা হতে পারে বলে বিজেপি সূত্র জানিয়েছে। আনা হতে পারে মুরলীধর রাওকেও।

তাহলে উত্তর পূর্বের দায়িত্ব কাকে দেয়া হবে? বিজেপি এবং আরএসএস সূত্রে জানা গেছে, ভি সতীশকে রাম মাধবের স্থানে প্রতিস্থাপন করা হতে পারে। তিনি দীর্ঘদিন আরএসএসে কাজ করেছেন এবং সমিতিতে একজন অত্যন্ত কঠোর মানুষ হিসেবেই পরিচিত।

বিজেপি সূত্রে খবর, ভি সতীশকে ত্রিপুরার দুর্বল সংগঠনকে পুনরুদ্ধার করার জন্যে এবং মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের ওপর কিছুটা চাপ দেয়ার জন্যেই সতীশকে আনা হতে পারে। যদিও জে পি নড্ডা এখনও কাউকে দায়িত্ব দেয়নি। সূত্র জানিয়েছে যে এই দায়িত্ব দেওয়ার কাজটি আগামি কয়েকদিনের মধ্যে শেষ হবে। এটি ত্রিপুরার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ।

কারণ রাম মাধবের খুব ভাল সম্পর্ক ছিল ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের। এই জন্যেই সংগঠনের কিছু নেতা বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধে কথা বললেও তা খতিয়ে দেখার পক্ষে দাঁড়ায়নি। উত্তর-পূর্বের ইনচার্জ ও জাতীয় সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবের সাথে তাঁর দুর্দান্ত বন্ধুত্বের কারণেই এটি হয়েছে।

তবে গত আড়াই বছরে বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধে বহু অভিযোগ উঠেছে। সম্ভবত অন্য কোনও রাজ্য বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এ জাতীয় অভিযোগ আর উত্থাপন করেনি।

খবরে বলা হয় যে ভি সতিশকে উত্তর পূর্ব অঞ্চলের দায়িত্বে এনে বিপ্লব দেবের উপর চাপ দেওয়ার কৌশল নেওয়া হতে পারে। এদিকে, নতুন দলে সহ‌‌সভাপতি পদ হারিয়েছেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান। এদিকে, সাধারণ সম্পাদকের পদ হারিয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রাম মাধব।

টুইট বার্তায় লিখেছেন, বিজেপি‌‌র ‌নতুন পদাধিকারীদের অনেক শুভেচ্ছা। সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পূর্ণ মেয়াদ কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য দলের কাছে কৃতজ্ঞ।‌‌ এই একইসাথে সহ‌‌সভাপতির পদ থেকে সরানো হয়েছে উমা ভারতী, প্রভাত ঝা, বিনয় সহস্রবুদ্ধের মতো নেতাদের। বর্তমান আনা হয়েছে ওম মাথুর, শ্যাম জাজু, অবিনাশ রাই, এবং দুষ্মন্ত গৌতমদের।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য