About Me

header ads

রাজ্যের করুন করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক সন্মেলনে প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সুদীপ রায় বর্মণ!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও বিদ্রোহী বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মণ আজ ত্রিপুরা স্বাস্থ্য বিভাগের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ তুললেন। গতকাল সন্ধ্যায় আগরতলা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে করে সুদীপবাবু বলেন, যদি এই অবস্থা অব্যাহত থাকে তবে ডিসেম্বরের মধ্যে কেবল আগরতলায়ই ৬৫০ মানুষ মারা যাবে!
তিনি বলেন, রাজ্যে কোভিডের নাগাড়ে ঊর্দ্ধমুখী। পরিসংখ্যান বলছে, এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত প্রতিদিন ত্রিপুরায় করোনার ভাইরাসে আক্রান্ত হন গড়ে ১২২ জন। কিন্তু শুধু আগস্টেই ৭১৬৮ জন কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন এবং প্রতিদিন গড়ে ২৩১ জন আক্রান্ত হচ্ছেন। তবে ত্রিপুরার শেষ সাত দিনে দৈনিক কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ৪৮৫ জন। শেষ তিন দিনে পজিটিভ রোগীর দৈনিক গড় ৫৪৮।
আগরতলায় সংক্রমণের হার ২১ শতাংশ যা জাতীয় গড়ের তুলনায় তিনগুণ বেশি। তিনি বলেছেন, এটি সবার পক্ষেই গভীর উদ্বেগের বিষয়। এসওপি রয়েছে বটে কিন্তু তাতে রয়েছে প্রচুর গাফিলতি। সুদীপ অভিযোগ করেছেন, নজরদারি চালানোর কেউ নেই।
তিনি অভিযোগ করেন যে জিবিপি হাসপাতালের কোনও সিনিয়র চিকিৎসক কোভিড চিকিৎসার জন্য যেতে প্রস্তুত নন। চার জন চিকিৎসক ব্যতীত সব সিনিয়র চিকিৎসক কোভিড ট্রিটমেন্ট সেন্টারে যেতে অস্বীকার করেছেন। জুনিয়র চিকিৎসক ও মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরাই সেখানে কোভিডের চিকিৎসা চালাচ্ছেন। সেবা দিচ্ছেন। সুদীপ বলেছিলেন যে চিকিৎসক এবং সহায়ক স্বাস্থ্য কর্মীদের অভাব রয়েছে তবে হাতে থাকা কর্মীদের সর্বোত্তম ব্যবহার করতে হবে।
সুদীপের অভিযোগ, জিবিপি হাসপাতালে সিটি স্ক্যান মেশিন, এক্স-রে মেশিন এমনকি পোর্টেবল এক্স-রে মেশিনও কাজ করছে না এবং সরকার এ বিষয়ে সচেতন নয়।
"প্রকৃতপক্ষে চিকিৎসার পুরো প্রক্রিয়া অনুমানের ভিত্তিতেই পরিচালিত হচ্ছে; আশ্চর্যের বিষয় হল, হাসপাতালের সামনে অ্যাম্বুলেন্স এলে কোনও স্টাফ পাওয়া যায় না এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে এম্বুলেন্সের ভিতরে রোগী মারা যায়" সুদীপ বলেছিলেন।
তিনি আরও অভিযোগ করেন, বটতলা শ্মশানে রেকর্ড থেকে দেখা গেছে যে সরকারি হিসেবের চেয়ে চেয়ে আরও বারো জন বেশি মারা গিয়েছে। সুদীপবাবুর অভিযোগ, মৃত্যু নিয়ে তথ্য গোপন করছে সরকার। তিনি আরও বলেছিলেন যে COVID19 মৃতদেহগুলি সৎকারের ভার যাদের উপরে দেওয়া হয়েছে তারা নির্বিচারে দেহ দাহ করে দিচ্ছে। যদিও, হিন্দুদের মধ্যে নাথ সম্প্রদায়, এছাড়া খ্রিস্টান, মুসলমানরা দেহ কবর দেন। তাঁর কথায়, "দুঃখজনক বিষয় হ'ল হিন্দুরা দাহ করার পরে অস্থিভস্ম সংগ্রহ করেন। কিন্তু কাউকে তা দেওয়া হচ্ছে না।"
তিনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সমালোচনা করে বলেন, মৃতদেহ ৩ দিনের জন্য হাসপাতালে ফেলে রাখা হয়েছে। তা পচে গিয়েছে। এমন ঘটনাও ঘটছে। মৃতদেহ নিয়ে কী করা হবে কোনও নির্দিষ্ট নিয়ম নেই। গোটা প্রক্রিয়ায় বিস্তর ফাঁক, গাফলতি। সমন্বয়ের অভাব ও ফাঁক মেটানোর মতো কেউ নেই।
সুদীপ বলেন, "এখনও জিবিপি হাসপাতালে ২৩০ জন রোগী রয়েছেন এবং তাদের মধ্যে ৪১ জন মাটিতে রয়েছেন; এমনকি অক্সিজেন সরবরাহের সমস্যা হওয়ায় আইসিইউও নিরাপদ নয়; টেলিমেডিসিন বিভাগ বন্ধ রয়েছে, চিকিৎসার জন্য ভিডিও কনফারেন্সিং রয়েছে এবং স্বজনরাও রোগীদের সাথে যোগাযোগ রাখবেন না; মাল্টি-সিট কল সেন্টারেরও জরুরি প্রয়োজন রয়েছে।
তিনি সকলকে চূড়ান্ত সংযম বজায় রেখে এবং সামাজিক দূরত্ব-সহ সকল নিয়ম অনুসরণ করার আহ্বান জানান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য