About Me

header ads

অবশেষে সংকটজনক রোগীর ঠাঁই হলো কোভিড সেন্টারে!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ রাজ্যে কোভিড পরিষেবার যে ক্রমেই অবনতি ঘটছে তা হয়তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না। সংক্রমণ বৃদ্ধির সাথে সাথে মৃত্যুর মিছিল যে ভয়াবহ আকার ধারণ করছে এতেও হুঁশ ফেরেনি রাজ্য সরকারের।যার পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্যের জিবি কোভিড ট্রিটমেন্ট সেন্টারের পরিষেবা নিয়ে রোগী এবং রোগীর পরিবার পরিজন সহ অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভারদের একাধিক অভিযোগের পরও উদাসীন রাজ্য স্বাস্থ্য পরিষেবা দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকরা এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রীও।
উল্লেখ্য, সোমবার মাঝরাতে গোমতী জেলা থেকে এক কোভিড আক্রান্ত রোগীকে জিবি হাসপাতালের কোভিড ট্রিটমেন্ট সেন্টার নিয়ে আসা হলে দীর্ঘ তিন ঘন্টা পর কোভিড সেন্টারে ঠাঁই মিলল সেই কোভিড আক্রান্ত সংকটজনক রোগীর। জানা যায়, এ দিন অ্যাম্বুলেন্স চালক এক কোভিড আক্রান্ত রোগীকে জিবি কোভিড ট্রিটমেন্ট সেন্টারে নিয়ে আসে।
দীর্ঘক্ষণ ডাকাডাকির পর ছুটে আসেন কোভিড সেন্টারের সিকিউরিটি গার্ড। তিনি এসে জানান চিকিৎসকের অনুমতি ছাড়া রোগী ঢুকানো যাবেনা। তাই সিকিউরিটি গার্ড হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে চিকিৎসকের অনুমতি নেন। দীর্ঘ তিন ঘন্টা পর রোগীকে অ্যাম্বুলেন্স থেকে কোভিড সেন্টারে ভিতর নিতে আসেন এম এস সহ দু'একজন স্বাস্থ্যকর্মী। আর তখন হৃদরোগের আক্রান্ত কোভিড রোগীটির অক্সিজেন সিলিন্ডার শেষ মুহূর্তে ছিল। হয়তো আর যদি ১০ মিনিট পর সেই রোগীকে যদি নিতে আসতেন তাহলে রোগীর মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েতেন বলে জানান এম্বুলেন্স ড্রাইভার। এম্বুলেন্স ড্রাইভার আরো জানান, জিবি কোভিড ট্রিটমেন্ট সেন্টারে প্রায়ই রাত ১২ টা পর রোগী নিয়ে আসলে চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের এ ধরনের গাফিলতি শিকার হতে হচ্ছে। দীর্ঘ ঘন্টার পর ঘন্টা ডাকাডাকির পর রোগী কোভিড সেন্টারের ভিতরে নিয়ে যাওয়া হয়। এতে প্রশ্ন হচ্ছে রাতে বেলায় কি কোভিড সেন্টারে দায়িত্ব পালনে কোনো চিকিৎসক বা স্বাস্থ্যকর্মী নেই ? আর যদি এমনটাই হয়ে থাকে তাহলে বহু কোভিড রোগী আগামী দিনে চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু হবে।তবে জিবি কোভিড ট্রিটমেন্ট সেন্টারের চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের এ ধরনের বহু অভিযোগ কোন নতুন বিষয় নয়। আর এই সংকটকালীন অবস্থায় স্বাস্থ্য দপ্তরের এ ধরনের ভূমিকা ক্ষোভে ফুঁসছে রাজ্যের সচেতন মহল।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য