About Me

header ads

সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে জাহাজ আসছে রাজ্যে!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ সোনামুড়াঃ আগামী মাসের পাঁচ তারিখের মধ্যেই সোনামুড়া নদী বন্দরে নোঙর করতে যাচ্ছে বাংলাদেশের একটি পণ্যবাহী নৌযান। পরীক্ষা মূলক ভাবেই পঞ্চাশ মেট্রিকটন সিমেন্ট নিয়ে আসছে নৌযানটি।
আজ বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে অনুমোদন পাওয়ার পর রাজ্যের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী টুইট বার্তায় এই সংবাদ প্রকাশ করেন। এর জন্য দেশের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কেন্দ্রীয় জাহাজ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মনসুখ এল মাণ্ডব্যকে ধন্যবাদও জানান আজ মুখ্য মন্ত্রী। এদিকে সোনামুড়া নদী বন্দরের পরিকাঠামোগত সমস্যাগুলোর সমাধানের লক্ষ্যে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে কাজ।
গত আঠার জুলাই পণ্য নিয়ে ছোট মাপের একটি জাহাজ আসার কথা ছিল সোনামুড়ার শ্রীমন্তপুর নদী বন্দরে। চৌদ্দ জুলাই জাহাজটি হলদিয়া বন্দর থেকে সোনামুড়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়েছিল বলেও খবর ছিল রাজ্য বাসীর কাছে। এখনো স্বপ্নের সেই জাহাজ নোঙর করেনি সোনামুড়া নদী বন্দরে। তা নিয়ে আলোচনা সমালোচনারও শেষ নেই রাজ্যে।
সব জল্পনা কল্পনার অবসান হতে যাচ্ছে আগামী সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহতেই, এমন বার্তাই দিয়েছেন আজ রাজ্যের মুখ্য মন্ত্রী। বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের একটি অনুমতি পত্রে বলা হয়েছে দুই দেশের নৌ প্রটোকলের চুক্তি মোতাবেক ট্রায়াল রানটি শুরু হচ্ছে।
চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের মেসার্স রুকনুর ন্যাভিগেশন লিমিটেড এর এম ভি প্রিমিয়ার নামে একটি চার্টার্ড ভেসেকে ট্রায়াল রানের জন্য অনুমতি দেওয়া হয়েছে। নৌ যানটি কুমিল্লার জেলার দাউদ কান্দি থেকে সোনামুড়া নদী বন্দরে আসা যাওয়ার জন্য ২রা সেপ্টেম্বর থেকে ত্রিশ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এক হাজার ব্যাগ (পঞ্চাশ মেট্রিকটন) সিমেন্ট নিয়ে আসবে নৌ যানটি। নৌ যানটির আসা যাওয়ায় যাবতীয় আইনি প্রক্রিয়ায় সহায়তা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকেও অবহিত করা হয়েছে।
আশা, নিরাশার মধ্যেই আজ ফের সোনামুড়ায় জাহাজ আসার বার্তা পেলো রাজ্যে বাসী। এর বার্তাকে স্বাগত জানিয়েছে ভারত বাংলাদেশ চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ (ত্রিপুরা চ্যাপ্টার) এবং ত্রিপুরা মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের কর্মকর্তাগন। ভারত বাংলাদেশ চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ এবং ত্রিপুরা মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সুজিত রায় জানান আগষ্ট মাসের মধ্যেই নৌ যানটি সোনামুড়ায় পৌছার কথা ছিল।
বাংলাদেশের জাতির জনক শেখ মুজিবর রহমানের স্মরণে সেই দেশে মাস ব্যাপী শোক চলছে। এই মাসে আন্তর্জাতিক কোন কাজ করতে আগ্রহী নয় বাংলাদেশ। শোকের মাস শেষ হলেই আগামী মাসের দুই তারিখ দাউদ কান্দি থেকে সোনামুড়ার উদ্দেশ্যে সিমেন্ট নিয়ে রওয়ানা হবে একটি ভেসেল।
চার সেপ্টেম্বর সীমান্তে এসে পৌঁছাবে ভেসেলটি। সেই দিন শুক্রবার। বন্ধ থাকবে বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন । পর দিন তথা পাঁচ সেপ্টেম্বর ভেসেলটি সীমান্ত অতিক্রম করবে বলেও আশা করা হচ্ছে বলে জানান শ্রী রায়। বাংলাদেশ থেকে সিমেন্ট নিয়ে আসা ভেসেলটিকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত থাকতে পারেন রাজ্যের মুখ্য মন্ত্রী সহ আরও অনেকেই। সেই লক্ষ্যে চলছে প্রস্তুতি। সংস্কার করা হচ্ছে শ্রীমন্তপুর আন্তর্জাতিক সড়ক। আগেই সত্তর লক্ষ টাকায় নির্মাণ করা হয়েছিল ভাসমান জেটি। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের নৌ যানটিকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত সোনামুড়া নদী বন্দর।
টুইট বার্তায় নৌযান আসার বিষয়টি ঐতিহাসিক মুহূর্ত বলে আখ্যা দেন মুখ্য মন্ত্রী। তার পর থেকে গোটা রাজ্যে যেন বইতে শুরু করে খুশীর হাওয়া। ফের শুরু হলো প্রতীক্ষায় প্রহর গুণা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য