About Me

header ads

রাজ্যের করুন স্বাস্থ্যপরিসেবা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে স্বদলীয় বিধায়কের চিঠি!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ সুদীপ রায় বর্মন এর পর এবার রাজ্যের স্বাস্থ্যপরিসেবা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বিধায়ক আশিশ কুমার সাহা। এ মর্মে তিনি আজ মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বাস্থ্য দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীকে চিঠি পাঠান। চিঠিতে রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার বর্তমান বিভিন্ন অব্যবস্থার  কথা তুলে ধরেন।
তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। চিঠিতে তিনি বলেন, "আগরতলা স্থিত এজিএমসি এন্ড জিবিপি হসপিটালের অক্সিজেন সরবরাহ লাইনে ত্রুটি থাকার ফলে শ্বাসকষ্টে রােগীর মৃত্যুর ঘটনা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম ও সামাজিক মাধ্যম দ্বারা আমার দৃষ্টিগােচর হয়েছে। সংবাদ মাধ্যমে দেখতে পেয়েছি, সম্প্রতি ত্রিপুরা বিধানসভার জনৈক প্রাক্তন বিধায়ক বিষয়টি সম্পর্কে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রতিকার চেয়ে রাজ্য সরকারের দৃষ্টিতে এনেছেন। বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, এজিএমসি এন্ড জিবিপি হসপিটালের অক্সিজেন সরবরাহ লাইনে মারাত্মক ত্রুটি থাকার বিষয়টি গত ফেব্রুয়ারী মাসে কর্মরত চিকিৎসকের নজরে আসামাত্র তিনি বিষয়টি তাৎক্ষণিক উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিতে নিয়ে জরুরী ভিত্তিতে অক্সিজেন সরবরাহ লাইনের এই মারাত্মক ত্রুটি সারানাের আহ্বান জানিয়েছিলেন।
কিন্তু উনার সেই আবেদনে সময়মত সাড়া না দেয়ার ফলে সেখানে ভর্তী হওয়া করোনা আক্রান্ত বেশ কয়েকজন রোগী অক্সিজেনের অভাবে শাসকষ্টে মারা গেছেন। আমি যতটুকু জানতে পেরেছি, শ্বাসকষ্ট থাকা এই সকল রোগীদের চিকিৎসা চলাকালীন স্ট্যান্ডার্ড মাডিক্যাল নমস অনুসারে ৫০ থেকে ৬০ PSI অক্সিজেন সরবরাহ করার কথা থাকলেও দপ্তরের খামখেয়ালীপনায় টিপুন এই অক্সিজেন পাইপ লাইনের মাধ্যমে এতদিন ধরে রোগীদেরকে শ্বাসপ্রশ্বাস নেওয়ার জন্য মাত্র ৩ থেকে ৫ PSI অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়েছে। স্বাভাবিক কারনেই সেখানে চিকিৎসাধীন রোগীদের মধ্যে অনেকেই শুসকষ্ট জনিত কারণে অকালে মৃত্যুবরণ করেছেন। বিষয়টি অত্যন্ত বেদনাদায়ক এবং দুর্ভাগ্যজনক। গত ২ রা আগষ্ট এজিএমসি এন্ড জিবিপি হসপিটালের TH - 2 , Covid Block, 3rd Floor, ICU- তে চিকিৎসাধীন বয়স্ক মহিলা বীনাপানি রায়ের মৃত্যু নিয়ে নিয়ে ইতিমধ্যেই বেশ সরগোল শুরু হয়েছে। মৃতার পরিবারের অভিযাগে, ভুল চিকিৎসা পদ্ধতি এবং অপ্রতুল চিকিৎসা পরিকাঠামোর জন্যই বীণাপানি রায়ের মৃত্যু হয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগীদের সরকারীভাবে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হলেও চিকিৎসার আনুসঙ্গিক ব্যবস্থাপনা নিয়ে অবহেলার অভিযোগও উঠছে। সরকারী চিকিৎসালয়ে অবহেলা ও ত্রুটিপূর্ণ ব্যবস্থাপনা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার এই যদি হাল হয়ে থাকে তাহলে রাজ্যের করোনা আক্রান্ত রোগীরা সরকারী চিকিৎসালয়ে গিয়ে চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ হয়ে উঠার ভরসা কি করে পাবে - এই নিয়ে কিন্তু ইতিমধ্যেই জনমনে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। আপনি এই রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রীও বটে। অতিমারি করোনা ভাইরাস সংক্রমনে আক্রান্ত রােগীদের সুদু বাবস্থাযোগ্য চিকিৎসা পরিষেবা বর্তমানে এই রাজ্যে কতটুকু রয়েছে। সেটা আপনিই ভাল জানবেন। তবে আমার মনে হচ্ছে, এই দিকে আরও নজর রাখা প্রয়োজন। এই বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত সকলকেই নিরবছিন্ন ও সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য আপনার যথাযথ পদক্ষেপ প্রত্যাশা করছি ।"

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য