About Me

header ads

রাজ্য আরও এক বিধায়ক কোভিড পজিটিভ!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ ত্রিপুরার আরেক বিধায়ক কোভিডকে ইতিবাচক বলে মনে করেন। উত্তর-পূর্ব ভারতের সব রাজ্যগুলোর মধ্যে ত্রিপুরায় করোনা সংক্রমণে মৃত্যুহার সর্বাধিক। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে দ্রুতভাবে।
ত্রিপুরায় আরো একজন বিধায়কের দেহে মারাত্মক করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। শনিবার, ২২ আগস্ট উক্ত বিধায়কের করোনা ধরা পড়ে। তিনি ক্ষমতাসীন(বিজেপি) দলের মহিলা বিধায়ক। তাঁর পাশাপাশি স্বামীর দেহেও নোভেল করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে।
এর আগেও আরো দুজন বিধায়কের শরীরে কোভিড-১৯ পজিটিভ পাওয়া গিয়েছিল। আক্রান্তরা ছিলেন বিজেপির সহ-সভাপতি ও বিধায়ক রামপদ জামাতিয়া এবং আইপিএফটি বিধায়ক ধনঞ্জয় ত্রিপুরা। এ নিয়ে ত্রিপুরায় মোট তিনজন বিধায়ক করোনায় আক্রান্ত হলেন।
মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের পরিবারের সদস্যও নোভেল করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীর সুরক্ষা কর্মীরাও কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছিলেন। বিপ্লব দেবের অবশ্য ফলাফল নেগেটিভ এসেছিল। যদিও মুখ্যমন্ত্রী নিজে সাতদিনের হোম আইসোলেশনে ছিলেন। এবং এভাবেই কাজ চালিয়েছেন তিনি।
শনিবার রাতে উক্ত মহিলা বিধায়কের দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়ার পরই জিবিপি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। তিনি শ্বাসকষ্টের সমস্যাতেও ভুগছিলেন। আগরতলার জিবিপি হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, বিধায়ককে অক্সিজেন দেয়া হচ্ছে।
শনিবার রাজ্যে সর্বোচ্চ করোনা সংক্রমণের রেকর্ড করেছে ত্রিপুরা। ২২ আগস্ট রাজ্যের ৮ জেলার মোট ৩৩১ জনের দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এবং এ পর্যন্ত এই সংখ্যাই সর্বাধিক। রাজ্যে মোট করোনাক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৭৪৪ জনে। আগস্ট মাসে গতকাল পর্যন্ত মোট ৩৭৪৬ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। এর অর্থ হলো, প্রতিদিন রাজ্যে গড়ে ১৭০টি নতুন কেস পাওয়া যাচ্ছে।
শনিবার রাত পর্যন্ত ত্রিপুরায় কোভিড সংক্রমণে মোট মৃত্যু হয়েছে ৭২ জনের। ভয়ানক হলো ৭২ জনের মধ্যে ৫১ জন শুধু এই মাসের রেকর্ডে! বর্তমান রাজ্যে করোনা সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ২৪৪৬ জন। এদিকে, ভারতে মোট করোনাক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লক্ষ অতিক্রম করেছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের হিসেব অনুযায়ী, বর্তমান ভারতে মোট করোনাক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০,৩৭,৬৫৭ জনে। এ পর্যন্ত এই মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫৬,৭৬২ জন ব্যক্তি। একইভাবে করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে কোভিডে আক্রান্ত হওয়া ২২,৭১,০৫৪ জন ব্যক্তি ইতিমধ্যে রোগ থেকে মুক্তিলাভ করতে সক্ষম হয়েছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য