About Me

header ads

জটিলতার অবসান ঘটিয়ে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃতদেহের সৎকার সম্পূর্ণ হয়!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ মঙ্গলবার জিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় এক করোনা আক্রান্ত রোগীর। মৃত ব্যক্তির বয়স ৪৮ বছর। করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যুর পর থেকে মৃতদেহের সৎকার নিয়ে দেখা দেয় জটিলতা। কোথায় মৃতদেহের সৎকার করা হবে এই নিয়ে জটিলতা দেখা দেয়। বটতলা মহাশ্মশানে মৃতদেহের সৎকার করা হবে এই সংবাদ ছড়িয়ে পড়তেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকার পরিবেশ।
মঙ্গলবার রাত থেকে এলাকার পুরুষ ও মহিলারা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। তাদের দাবি বটতলা মহাশ্মশানে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃতদেহের সৎকার করা যাবে না। রাতভর এই নিয়ে চলে নানান জল্পনা। বুধবার সকালেও একই চিত্র পরিলক্ষিত হয়। পরবর্তী সময় সদর মহকুমার মহকুমা শাসক সহ এলাকার বিধায়ক আশিস কুমার সাহা ও বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন বটতলা মহাশ্মশান এলাকায় ছুটে যান। তারা কথা বলেন এলাকার বাসিন্দাদের সাথে। তাদেরকে বুঝিয়ে বলেন বটতলা মহাশ্মশানে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃতদেহের সৎকার করা হলে এলাকাবাসীর কোন ধরনের সমস্যা হবে না। এমনকি এলাকায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কোন ধরনের আশঙ্কা থাকবে না। সকল ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেই সবকিছু করা হবে। তারপরই এলাকার পরিবেশ স্বাভাবিক হয়।
এলাকার পরিবেশ স্বাভাবিক হওয়ার পর বুধবার বিকালে জিবি হাসপাতালের মর্গ থেকে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বটতলা মহাশ্মশানে। তার আগে জিবি হাসপাতালের মর্গে সকল ধরনের নির্দেশিকা মেনে মৃতদেহ পেকেটিং করা হয় মৃত ব্যক্তির পরিবারের লোকজনদের উপস্থিতিতে। পরবর্তী সময়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে করে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বটতলা মহাশ্মশানে। তার আগে বটতলা মহাশ্মশানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। মৃতদেহ সৎকারের কাজে নিযুক্ত কর্মীদের সুরক্ষার জন্য পিপিই কিট ব্যবহার করা হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সদর মহকুমা শাসক অসীম সাহা, জেলা প্রশাসনের আধিকারিক, জেলা ও মহাকুমা আরক্ষা প্রশাসনের আধিকারিক সহ অন্যান্যরা।
সদর মহকুমার শাসক অসীম সাহা জানান বটতলা মহাশ্মশানে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃতদেহের সৎকার করা নিয়ে স্থানীয়রা মঙ্গলবার বিক্ষোভ প্রদর্শন করলেও বুধবার সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে যায়। সকল ধরনের নির্দেশিকা মেনে মৃতদেহের সৎকার করা হয়েছে।
প্রথমদিকে বটতলা মহাশ্মশান সংলগ্ন এলাকার লোকজনদের বুঝতে কিছুটা সমস্যা হলেও, পরবর্তী সময়ে তারা বুঝতে পারে। এবং শেষ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃতদেহের সৎকারে এলাকার লোকজন কোন ধরনের বাধাদান করেনি। ফলে বিনা বাধায় বটতলা মহাশ্মশানে মৃত দেহের সৎকার সম্পন্ন হয়। এদিকে মৃত ব্যক্তির সৎকার সম্পন্ন হওয়ার পর বটতলা মহাশ্মশানকে সেনিটাইজ করা হয়। একইসাথে যে অ্যাম্বুলেন্সে করে মৃতদেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে সেই অ্যাম্বুলেন্সটিকেও সেনিটাইজ করা হয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য