About Me

header ads

করোনা মোকাবিলায় কোকোবোট তৈরি করলেন রাজ্যের প্রতিভাবান ইঞ্জিনিয়ার!

প্রতিক ছবি।

ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ কোকোবোট তৈরি করল অবিভক্ত উত্তর জেলার দুই প্রতিভাবান ইঞ্জিনিয়ার। তাদের দাবি তাদের এই প্রচেষ্টা রাজ্যের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী দের নিরাপত্তার ও চিকিৎসার জন্য সহায়ক হবে।
অভিষেক ধর কৈলাশহর কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় পড়াশোনা শেষ করে ভুবনেশ্বরের কলিঙ্গ ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি থেকে ইলেকট্রনিক্স ও টেলিকমিউনিকেশনে ইঞ্জিনিয়ারিং এ বিটেক সমাপ্ত করেছে ২০১৮ সালে। অপরদিকে উত্তর জেলার ধর্মনগর শহরের শাকাইবাড়ি রোডের বাসিন্দা দেবাশীষ ধর সম্পর্কে অভিষেকের ভাই। একই বিষয় নিয়ে কলিঙ্গ ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডাস্ট্রিয়াল টেকনোলজি থেকে ২০১৮ সালে পাশ করে। পাশ করার পর দুই ভাই বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরিতে যোগ দেয়। কিন্তু কয়েক মাস পরই নতুন কিছু করার চিন্তাধারা নিয়ে অভিষেক বেসরকারি কোম্পানির চাকরি ছেড়ে দেয়।
২০১৮ সালের জুন মাস নাগাদ নিজেদের স্টার্টআপ শুরু করে। অভিষেক নিজের স্টার্টাপের নাম দেয় আইলজিট্রন টেকনোলজিস। লকডাউনে অনলাইনে কাজ করার তেমন কিছু একটা ছিল না। ফলে দুই ভাইয়ের কাছেই যথেষ্ট সময় ছিল। পরবর্তী সময় যখন সারাদেশে ও রাজ্যে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী রোগীদের চিকিৎসা করার ক্ষেত্রে যে ধরনের অসুবিধা কিংবা কষ্টকর পরিস্থিতির চিত্র সামনে আসছিল, তার থেকেই এই কোকোবোট তৈরীর পরিকল্পনা নেয় দুই ভাই। এই কোকোবোট তৈরির ক্ষেত্রে তাদের সব থেকে বেশি অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়েছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ বহি রাজ্য থেকে আনতে। কারণ সংক্রমনের কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল।  অপরদিকে রাজ্যে এইধরনের যন্ত্রাংশ পাওয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই। তাই সমস্ত কিছু তৈরি থাকলেও তাকে সবার সামনে তুলে ধরতে অনেকটা দেরি হয়ে গেছে।
অভিষেক ধর আরও জানিয়েছেন যে কোকোবোট তৈরি হয়েছে সেটা শুধুমাত্র একটি ডেমোস্ট্রেশন। সেটা দুই থেকে তিন ঘণ্টা পর্যন্ত কাজ করতে সক্ষম। তারা আরো জানান সম্পূর্ণরূপে এই রোবটটি তৈরি করতে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকার মতো খরচ হবে। তবে তারা রাজ্য সরকারের কাছে আর্থিক সাহায্য নয়, এই রোবটটি তৈরি করার জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ যেন আনার ব্যবস্থা করে দেয় রাজ্য সরকার সেই আবেদন রেখেছেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য