About Me

header ads

সারা দেশের সাথে রাজ্যেও পালিত ১৫৯তম রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তী!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ শুক্রবার কবি গুরু রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের ১৫৯তম জন্ম বার্ষিকীতে শ্রদ্ধাজ্ঞলী অর্পণ করা হয় তথ্য, সংস্কৃতি দপ্তরের উদ্যোগে। যদিও লক ডাউন চলায় প্রকাশ্যে অনুষ্ঠান ইতিমধ্যেই বাতিল করা হয়। এদিন সকালে রাজধানীর রবীন্দ্র কাননে কবি গুরুর পূর্ণাবয়ব মূর্তিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।
বাঙালির মন ও মনন জুড়ে যাঁর বিচরণ। তাই প্রতি বছর ২৫শে বৈশাখ তাঁর সৃষ্টি ঘিরে চলে নানা উদ্‌যাপন। কিন্তু এ বার সে উৎসবে ভাটা পড়েছে। কোভিড-১৯ এর জেরে জমায়েত নিষিদ্ধ। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এদিন মুখ্যমন্ত্রী সহ অন্যান্যরা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন কোভীড-১৯ এর কারণে রাজ্যবাসী এই বছর উৎশাহ ও উদ্দিপনার সঙ্গে কবি গুরুর জন্ম দিন পালন করতে পারছে না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতেই এই ব্যবস্থা। কবি গুরু রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর ছিলেন একজন কবি, দার্শনিক, শিক্ষাবিদ, স্বাধীনতা সংগ্রামী। তার লেখা দুটি গান দুই দেশের রাষ্ট্র সংগীত। ভারত ও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত কবি গুরুর সৃষ্টি।
সমগ্র বিশ্বে এমন কোন কবি বা লেখক নেই জার লিখিত গানই দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত। রাজ্যের মানুষের কাছে গর্বের জে কবি গুরু বাংবার ত্রিপুরায় এসেছেন। ত্রিপুরার সঙ্গে তাঁর নিবিড় সম্পর্ক ছিল। তাঁর জন্য রাজ্যবাসী ভাগ্যবান। আজকের অঙ্গীকার হওয়া উচিৎ কবি গুরু রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর জে স্বপ্ন দেখেছিলেন জে স্বভিমানী ভারত, সর্ব শ্রেষ্ঠ ভারতের সেই দিশাতে মাতৃভুমিকে নিয়ে যেতে হবে।
মুখ্যমন্ত্রী আরো বলেন রাজ্যে করোনার প্রাদুর্ভাব ঘটেছে। তাই রাজ্যবাসীর উচিৎ সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা। স্বাস্থ্য কর্মী ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাধ্যমে জে দিশা নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে তাকে মান্যতা দেওয়া। এতো সহজে করোনা ছেড়ে যাচ্ছেনা। এই ক্ষেত্রে করোনাকে পরাজিত করতে সামজিক দূরত্ব বজায় রেখে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বিশেষ বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। প্রধানমন্ত্রীর বিষয় গুলি মেনে চলার বার্তাও দেন তিনি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ