About Me

header ads

ভগৎ সিং যুব আবাস থেকে করোনা আক্রান্তদের স্থানান্তরিত করার দাবিতে পথ অবরোধ!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ সম্প্রতি রাজ্য সরকার রাজধানীর ভগৎ সিং যুব আবাসকে কোভিড কেয়ার সেন্টার হিসেবে ঘোষণা করে। সেখানে ৩০০ শয্যার ব্যবস্থা করা হয়। সেই মোতাবেক শনিবার করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেখানে নিয়ে আসা হয়। তারপর থেকে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করতে থাকে স্থানীয়দের মধ্যে।
রবিবার সেই চাপা ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। এদিন সকাল থেকেই রাজধানীর ভিআইপি রোড অবরোধ করে বসে স্থানীয়রা। ঘটনার খবর পেয়ে মহকুমা পুলিশ আধিকারিক এর নেতৃত্বে বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। পরবর্তী সময় জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সহ ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন সদর মহকুমার মহকুমা শাসক অসিম সাহা। সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করার জন্য স্থানীয়দের সাথে কথা বলেন প্রশাসনিক আধিকারিকরা। কিন্তু স্থানীয়রা তাদের দাবিতে অনড় থাকে। স্থানীয়দের দাবি করোনা আক্রান্ত রোগীদের ভগৎ সিং যুব আবাস থেকে অন্যত্র সরিয়ে নিতে হবে।দীর্ঘ আলোচনার পরও কোনো সমাধান সূত্র মিলেনি। তখন পুলিশ বলপূর্বক এই সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করার চেষ্টা করে। কিন্তু উত্তেজিত জনতা পুলিশকে লক্ষ্য করে ঢিল ছুড়তে থাকে। বাধ্য হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য পুলিশকে লাঠিচার্জ করতে হয়।
সদর মহকুমা শাসক অসীম সাহা জানান স্থানীয়রা যে দাবিকে সামনে রেখে সড়ক অবরোধে বসেছে সেই দাবিকে মানা যায় না। এই মুহূর্তে মানুষকে বাঁচাতে হবে। সকল ধরনের ব্যবস্থা করেই ভগৎ সিং যুব আবাসে করুন আক্রান্তদের রাখা হয়েছে।এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে পরবর্তী সময়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন এলাকার বিধায়ক ডাক্তার দিলীপ দাস। কথা বলেন প্রশাসনিক আধিকারিক ও এলাকার লোকজনদের সাথে।
তারপর তিনি সংবাদ প্রতিনিধিদের মুখোমুখি হয়ে জানান স্থানীয়দের সড়ক অবরোধ করা ঠিক হয়নি। বর্তমান পরিস্থিতির কথা তাদের মাথায় রাখা উচিত ছিল। পাশাপাশি তিনি প্রশাসনিক আধিকারিকদের প্রতি আহ্বান জানান করোনা আক্রান্তদের যারা চিকিৎসা করবে তাদেরকে ভগৎ সিং যুব আবাসে নিয়ে আসা ও নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে যেন সুনির্দিষ্ট নির্দেশিকা তৈরি করা হয়। যাতে করে এলাকার মানুষের মধ্যে কোন ধরনের আতঙ্ক না ছড়ায়।
পুলিশের লাঠিচার্জ এর ফলে আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন স্থানীয় লোক। তাদেরকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়াও কয়েকজনকে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এলাকায় বর্তমানে মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশ ও সিআরপিএফ বাহিনী। এলাকায় বিরাজ করছে থমথমে পরিবেশ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য