About Me

header ads

বাংলাদেশ থেকে রাজ্যে ফিরলেন ১২৯ জন নাগরিক!


ডেস্কও ওয়েব ডেস্কঃ বৃহস্পতিবার আখাউড়া সীমান্ত দিয়ে রাজ্যে আসে বাংলাদেশে আটকে পড়া ত্রিপুরার ১২৯ জন নাগরিক। এদিন বাসে করে আখাউড়া সীমান্ত পর্যন্ত আনা হয় তাদের। এরপর নিয়ম মেনে করা হয় থার্মাল টেস্টিং।
এদিকে বাংলাদেশ থেকে আগত ত্রিপুরার ১২৯ জন বাসিন্দাকে স্বাগত জানাতে আখাউড়া সীমান্তে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ প্রতিমা ভৌমিক। রাজ্যে আসেন ঢাকা স্থিত ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা দাস গাঙ্গুলী। তাদের ফেরত পাঠানোর বিষয়টি তদারকি করতেই এদিন রাজ্যে আসেন তিনি। আখাউড়া সীমান্তে কথা বলেন সাংসদ প্রতিমা ভৌমিকের সঙ্গে। এদিন বাংলাদেশে আটকে পড়া উত্তর পূর্বাঞ্চলের ২৩০ জনকে দেশে আনার ব্যবস্থা করা হয়। এরমধ্যে রয়েছে ত্রিপুরা, মেঘালয়, মণিপুর ও আসাম। আসামের করিমগঞ্জ দিয়েও অনুরূপ ভাবে ফেরেন বাংলাদেশে আটকে পড়া ভারতীয় নাগরিকেরা। একদিনের জন্য সীমান্ত খোলা হয়েছে। দীর্ঘদিন পর তারা বাড়ি ফিরতে পারছেন। যারা সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করছে তাদের ব্যবস্থা দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন ঢাকা স্থিত ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা দাস গাঙ্গুলী। এদিনই তিনি পুনরায় বাংলাদেশ ফিরে যান।
অন্যদিকে সাংসদ প্রতিমা ভৌমিক জানান বাংলাদেশ থেকে আটকে পড়া ১২৯ জন আখাউরা দিয়ে রাজ্যে প্রবেশ করেছে। তাদের প্রত্যেককে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখা হবে। প্রত্যেকের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হবে। যেই নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে তা সকলকে মেনে চলতে হবে। মুখ্যমন্ত্রীও বিভিন্ন স্থানের ব্যবস্থা ক্ষতিয়ে দেখতে বের হবেন। বাংলাদেশ থেকে আগত সকলকে পরীক্ষা করার পর সাত দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। সীমান্তে স্বাস্থ্য দপ্তর সহ অন্যান্য দপ্তরের কর্মীরা দায়িত্ব নিয়ে কাজ করেছে। আরো কিছু বাকি রয়েছে। তাদের আগামী দিনে আনার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান সাংসদ প্রতিমা ভৌমিক। কুমিল্লা, ঢাকা এই সব স্থান থেকে মূলত এসেছে এদিন। সকলের পরীক্ষা হবে। কোন ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না বলে জানান তিনি।
এদিকে রাজ্যে ফিরতে পেরে খুশী রাজ্যের বাসিন্দারা। বাংলাদেশ সরকার এবং ঢাকা স্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশনারের সহযোগিতা পেয়েছেন। একই সঙ্গে রাজ্য সরকারের ভূমিকা নিয়ে সন্তোষ ব্যক্ত করেন ফিরে আসা রাজ্যের বাসিন্দারা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য