About Me

header ads

উত্তর জেলায় অগ্নিদগ্ধ গৃহবধূ, হত্যার অভিযোগে থানায় মামলা!


ডেস্কও ব্যুরোঃ দুই মাস ৬ দিন আগে সকল রীতি মেনে সামাজিক ভাবে ধর্মনগর মহকুমার ঢুপির বন্ধ লাল ছড়া গ্রামের তসলিম উদ্দিনের সাথে বিয়ে হয় কালাছড়া এলাকার আফিয়া বেগমের। কিন্তু বিয়ের কয়েকটা দিন যেতে না যেতে তাদের মধ্যে শুরু হয় প্রচণ্ড ঝগড়া বিবাদ। প্রায় প্রতিদিন চলত তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি। আফিয়া বেগমের শ্বশুর শাশুড়ি এই বিষয়ে অবগত ছিলেন।
সোমবার বাড়িতে লোকজন এনে এর একটি বিচারের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে চেয়েছিলেন আফিয়া বেগমের শশুর শাশুড়ি। বাড়িতেই তসলিম ও আফিয়াকে নিয়ে কথাবার্তা শুরু  হয়। কিন্তু এই কথাবার্তা চলাকালীন আফিয়া বেগম সেখান থেকে অন্য ঘরে গিয়ে নিজের গায়ে আগুণ ধরিয়ে দেয় বলে জানান আফিয়া বেগমের শাশুড়ি। সোমবার এই ঘটনা ঘটে।

সঙ্গে সঙ্গে  খবর দেওয়া হয় দমকল অফিসে। দমকল বাহিনীর কর্মীরা ছুটে গিয়ে ধর্মনগর জেলা হাসপাতালে  নিয়ে আসে আফিয়া বেগমকে। তার সারা শরীরের প্রায় ৯০ ভাগ পুড়ে যায় বলে জানান কর্তব্যরত চিকিৎসক আশিস সেন। আফিয়ার স্বামী তসলিম উদ্দিনকে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে সে জানায় বিয়ের পর থেকে আফিয়া বারবার তার বাবার বাড়ি নিয়ে দিয়ে আসার কথা বলে। কিন্তু না নিয়ে যাওয়ায় এই ঘটনা ঘটেছে। এদিকে আফিয়ার শাশুড়িও একই বক্তব্য পেশ করেন।
কিন্তু আফিয়া তার বাবার বাড়ির লোকদের জানায় বিয়ের পর থেকে স্বামী তসলিম উদ্দিন তাকে তার বাবার বাড়ি ফিরে যাওয়ার কথা বলে। আর আফিয়া না যাওয়ায় তার সাথে খারাপ ব্যবহার করতো তসলিম উদ্দিন। এদিকে আফিয়ার কাকু জানান এই বিষয়ে তারা কিছু জানেন না, খবর পেয়ে তারা হাসপাতালে এসেছেন।
আফিয়ার অবস্থার অবনতি ঘটায় তড়িঘড়ি ধর্মনগর হাসপাতাল থেকে আগরতলা জি বি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। আফিয়া বেগমের মা ধর্মনগর মহিলা থানায় মেয়ের জামাই তসলিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করে থানায় মামলা করেন। দীর্ঘ সময় পলাতক থাকার পর অবশেষে রাতে তসলিমকে আটক করে পুলিশ। ঘটনার খবর পাওয়ার পর থেকে ধর্মনগর মহিলা থানা পুরো ঘটনার সত্য উৎঘাটন করতে তদন্ত শুরু করেছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ