About Me

header ads

রাজ্যে একের পর এক খুনের ঘটনায় ত্রস্ত জনজীবন!


ডেস্কও ব্যুরোঃ একের পর এক হত্যার ঘটনায় ত্রস্ত জনজীবন। সারা দেশ তথা রাজ্যে চলা লকডাউনের মধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন হত্যার মত ন্যাক্কার জনক ঘটনার সংবাদ আসছে।
লকাডাউনের বন্দি জীবিনে পারিবারিক কলহ জেন প্রতিদিন মাথা চাড়া দিয়ে বাড়ছে। ধারনা করা হচ্ছে পারিবারিক কলহের জেরেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে একের পর এক হত্যার ঘটনা ঘটেই চলছে।
এরকমই একটি ঘটনা খোয়াইয়ের চাম্পাহাওর থানার অন্তর্গত গোপালনগরের জমাদার বাড়ি গ্রামে। চাম্পাহাওর থানা এলাকার পশুরামবাড়ির বাসিন্দা স্বপন দেববর্মা গড়িয়াপূজা উপলক্ষ্যে সোমবার দুপুরে স্ত্রীকে সাথে নিয়ে মামা লক্ষু দেববর্মার বাড়িতে আসে। রাতের নৈশ ভোজের পর স্বপন দেববর্মা তার স্ত্রী কবিতা দেববর্মার সাথে ঝগড়া করে। পরবর্তী সময় দুউ জনই একই ঘরে ঘুমিয়ে পরে। কিন্তু মঙ্গলবার ভোরে দুইজনে পুনঃরায় ঝগড়া শুরু করে। তখন স্বপন দেববর্মার মামা লক্ষু দেববর্মা ঘরের দরজা খোলার জন্য ডাকাডাকি করেন। কিন্তু স্বপন দেববর্মা স্ত্রীকে হুমকি দেয় ঘরের দরজা খোলা হলে কেটে ফেলা হবে। তখন লক্ষু দেববর্মা আর ডাকা ডাকি করেন নি।
দীর্ঘ সময় পর ঘরের দরজা বন্ধ দেখার পর মাম লক্ষু দেববর্মার সন্দেহ হয়। তখন স্থানীয় লোকজনদের ডাকা হয়। স্থানীয়রা এসে ঘরের বেড়া কেটে দেখতে পায় স্বপন দেববর্মা আত্মহত্যার চেষ্টা করছে। স্থানীয়রা তাকে বাচায়। তারপরই সকলের নজরে পরে স্বপন দেববর্মার স্ত্রীর রক্তাক্ত নিথর দেহ বিছানার মধ্যে পরে রয়েছে। শ্বাস নালি কেটে তাকে হত্যা করা হয়েছে।
সেই সুযোগে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় স্বপন দেববর্মা। এইদিকে ঘটনার খবর পেয়ে চাম্পাহাওর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। ঘটনাস্থলে আনা হয় পুলিশ কুকুর। মৃতদেহ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়। পুলিশ পলাতক স্বপন দেববর্মাকে জালে তোলার চেষ্টা করছে। ঘটনা সম্পর্কে জানান অভিযুক্তর মামার বাড়ির এক মহিলা।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য