About Me

header ads

আরও দু’ সপ্তাহ থাকতে পারে লকডাউন!


ডেস্কও ব্যুরোঃ লকডাউন নিয়ে পর্যালোচনা করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ লকডাউনের শেষ দিন অর্থাৎ ১৪ এপ্রিল পর্যালোচনার রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর  নতুন করে লকডাউন নিয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন প্রধানমন্ত্রী৷ বেশ কিছু স্থানে শিথিল হতে পারে লকডাউন৷ তবে হটস্পট অর্থাৎ গত দু সপ্তাহে যে সব জায়গা গুলি থেকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেশি এসেছে, সেই সব জায়গায় আরও দু সপ্তাহ থাকতে পারে লকডাউন৷
তবে কোনও কোনও জায়গায় লকডাউন শিথিল হতে পারে কয়েক ঘণ্টার জন্য৷ অর্থাৎ নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বেশ কিছু জায়গায় লডডাউন শিথিল করতে পারে সরকার৷ তবে এই সব ঘোষণা হবে জিএমও-র বৈঠকের পর৷ ১২ ও ১৩ এপ্রিল লকডাউন পর্যালোচনা করতে বৈঠকে বসছে এই জিএমও৷ তারপরই লকডাউন নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধানমন্ত্রী৷
দেশের সব জায়গায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কম অথবা ভবিষ্যতে আক্রান্তের ঝুঁকি কম, সেই সব কয়েক ঘণ্টার জন্য লকডাউন শিথিল করার ভাবনা রয়েছে সরকারের৷ তবে লকডাউন উঠলে এখনই খুলবে না স্কুল, কলেজ এবং ধর্মীয় স্থান এবং সিনেমা হল ও শপিংমল গুলি৷ কারণ এখনই কোনও জমায়েত চাইছে না সরকার৷ করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আরও সতর্ক হতে বলে সোমবারই জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷
এদিন দেশবাসীর উদ্যেশে মোদী বলেন, করোনার বিরুদ্ধে লম্বা লড়াইয়ে দেশবাসী একজোট হতে হবে৷ তবেই আমরা জিততে পারব৷ প্রত্যেককেই লকডাউন মেনে চলার বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি বিশেষ প্রয়োজনে বাড়ির বাইরে বের হলেও প্রত্যেকেই মাস্ক পরতে অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ সুতরাং এখনই যে সারা দেশ থেকে লকডাউন উঠছে না, তার ইঙ্গিত এদিনও ফের দিয়েছেন মোদী৷
মারণ এই করোনা ভাইরাসে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে৷ সোমবার সাকালে শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে। শেষ ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩২ জনের৷ স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ইতিমধ্যে ৪০০০ পার করে ফেলেছে৷ পরিসংখ্যান অনুযায়ী মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪,০৬৭ জন। সব যে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন মহারাষ্ট্রে৷ শেষ ১২ ঘণ্টায় দেশে ৪৯০ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে৷ তবে মোট আক্রন্তের মধ্যে এখনও পর্যন্ত ২৯২ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন৷ অর্থাৎ এই মুহূর্তে দেশে ৩,৬৬৬ জনের শরীরে এই মারণ ভাইরাস রয়েছে৷

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ