About Me

header ads

বহিঃরাজ্যে চিকিৎসাধীন করোনায় আক্রান্ত রাজ্যের ৮ বাসিন্দাঃ স্বাস্থ্য দপ্তর


ডেস্কও ব্যুরোঃ এখনো পর্যন্ত রাজ্যের ৮ বাসিন্দা করোনায় আক্রান্ত। বহিঃরাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে তারা। তাদের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল। প্রত্যেকেরই নিজামউদ্দিন যাওয়ার যৌগসূত্র রয়েছে।
মহাকরণে সাংবাদিক সম্মেলন করে এই তথ্য দেন স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষে ডাক্তার দীপ দেববর্মা।এখনো পর্যন্ত রাজ্যে  কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ২ হাজার ৫৫৮ জন। ইনস্টিটিউসনাল কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ১৫০ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ২ হাজার ৪৪৩ জন।  সোমবার ২২৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সকলের নমুনার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।
সোমবার মহাকরণে সাংবাদিক সম্মেলন করে স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষে এই সংবাদ জানান ডাক্তার দীপ দেববর্মা। তিনি আরও জানান এখনো পর্যন্ত রাজ্যের ৮ জন নাগরিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। তারা সকলে বহিঃরাজ্যে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তারা ১৮ মার্চ ত্রিপুরা থেকে বহিঃরাজ্যের উদ্দেশ্যে যায়। ২১ মার্চ তারা দিল্লির নিজামউদ্দিন ধর্ম সভায় গিয়ে পৌছায়। পরবর্তী সময় তাদের ইনস্টিটিউসনাল কোয়ারেন্টাইনে নিয়ে যাওয়ার পর নমুনা পরীক্ষা করা হলে রিপোর্ট পজেটিভ আসে। করোনায় আক্রান্ত রাজ্যের ৮ জনের মধ্যে দিল্লিতে চিকিৎসাধীন রয়েছে দুই জন। রাজস্থানে রয়েছে দুই জন এবং উত্তর প্রদেশে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৪ জন। তাদের সকলের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। করোনায় আক্রান্ত রাজ্যের ৮ বাসিন্দার মধ্যে ১ জনের বাড়ি সিপাহিজলা জেলা, ৪ জনের বাড়ি দক্ষিণ জেলায়, ১ জনের বাড়ি গোমতী জেলায় এবং ২ জনের বাড়ি পশ্চিম জেলায়।
১৪ এপ্রিল লক ডাউন উঠে যাওয়ার পর প্রত্যেককে মার্কস পড়া বাধ্যতা মূলক করা হবে। সকল সরকারী কর্মচারী কর্মস্থলে যাতে মার্কস পারে থাকে তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। এমডি এনএইসএম একটি ওয়ার্ক ওডার জারি করেছে। স্বাস্থ্য কর্মী, অঙ্গনওয়ারী কর্মী ও আশা কর্মীদের বিনামূল্যে মার্কস দেওয়ার জন্য। বাকি অন্যান্য দপ্তর গুলিকেও বিনামূল্যে মার্কস দেওয়া হবে। গ্রামোন্নয়ন দপ্তরের অধিনে থাকা বিভিন্ন স্ব-সহায়ক দল এই মাক্স তৈরি করবে। এর জন্য মন্ত্রক থেকে নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন ১ হাজার করে মাক্স উৎপাদন করা হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশিকা মেনেই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে এক লক্ষ সরকারী কর্মচারীকে মাক্স পরে আশা বাধ্যতা মূলক করা হবে বলে সাংবাদিক সম্মেলনে জানান স্বাস্থ্য দপ্তরের সচিব দেবাশিষ বসু।
অতিরিক্ত জেলা শাসক টিকে দাস জানান রাজ্যে গনবণ্টন ব্যবস্থায় ৬৮ দিনের চাল,৮১ দিনের গম, ২২ দিনের চিনি, ১৯ দিনের লবণ, ৬ দিনের মসুরি ডাল এবং চার দিনের তেল রয়েছে। সোমবার বাজারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী চাল মজুত রয়েছে ১০৯ মেট্রিক টন, আটা ৪ মেট্রিক টন, চিনি ৩৯.১ মেট্রিক টন, লবণ ১৪.৫ মেট্রিক টন, ডাল ৩৭.৪ মেট্রিক টন, তেল ৮২ কিলো লিটার, পেঁয়াজ ১৫০ মেট্রিক টন, আলু ১১০ মেট্রিক টন। ইতিমধ্যে জিরানিয়া স্টেশনে এসে পৌঁছেছে ডালের মজুত। মঙ্গলবার থেকে তা বণ্টন শুরু হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য