About Me

header ads

বুধবার রাতে ধর্মনগর থানা এলাকায় দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য!

সম্প্রতি ধর্মনগর মহকুমা জুড়ে চোরের উপদ্রব অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাড়ি ঘর থেকে মন্দির মসজিদ কিছুই রেহাই পাচ্ছে না চোরের হাত থেকে। সুযোগ বুঝে একের পর এক চুরির ঘটনা সংগঠিত করে যাচ্ছে চোরের দল। প্রায় প্রতিদিন ঘটছে চুরির ঘটনা।

বুধবার রাতেও তাঁর ব্যতিক্রম হয়নি। বুধবার রাতে ধর্মনগর থানা এলাকার পৃথক দুইটি জায়গায় চুরির ঘটনা সংগঠিত করে চোরের দল। বুধবার রাতে একটি চুরির ঘটনা ঘটে ধর্মনগর থানার অন্তর্গত রাজবাড়ি শ্মশান কালি বাড়ি রোডের একটি গাড়ির পার্টসের দোকানে। চোরের দল দোকানটিতে হানা দিয়ে ৬ লক্ষাধিক টাকার সামগ্রী চুরি করে নিয়ে যায়। দোকানে মালিক সপন তালুকদার  জানান এইদিন সকালে তিনি দোকানে এসে দেখেন দর্জায় তালা নেই তারপর দোকানে চুরি হয়েছে বুঝতে পেরে তিনি খবর দেন ধর্মনগর থানায়। দোকানে সিসি ক্যামেরা থাকলেও চোরের দল দরজার তালা ভেঙ্গে প্রথমে সিসি কেম্যারার তার ছিরে ফেলে। যার কারনে কেম্যারাতে কিছু রেকর্ডিং হয়নি।এইদিকে চুরির ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থালে ছুটে আসে ধর্মনগর থানার পুলিশ। এক পুলিশ অফিসার চুরির ঘটনার কথা স্বীকার করেন। তিনি আরও বলেন ঘটনার তদন্ত করা হবে।

বুধবার রাতে দ্বিতীয় চুরির ঘটনাটি ঘটে যুবরাজনগর ব্লকের অন্তর্গত রাজনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের লক্ষীনগরে। এলাকার বাসিন্দা উত্তম দেবনাথ। ওনার একটি পাওয়ার টেইলার ছিল। বুধবার দিনের বেলা  উত্তম দেবনাথের ভাই দিপক দেবনাথ বাড়ির পাশের জমিতে পাওয়ার টেইলার চালানোর পর বিকালে জমিনের পাশে রাস্তার মধ্যে  পাওয়ার টেইলারটি রেখে বাড়িতে চলে যান। বৃহস্পতিবার সকালে ঘুম থেকে উঠে উত্তম দেবনাথ দেখতেপান পাওয়ার টিলারটি নেই ।সাথে সাথে তিনি পুলিশকে খবর দেন। এই ক্ষেত্রেও ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ। পুলিশ এই ঘটনারও তদন্তে নেমেছে।

তবে একই রাতে থানা এলাকার পৃথক দুইটি জায়গায় চুরির ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। প্রশ্ন উঠছে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে। সম্প্রতি ধর্মনগর মহকুমা জুড়ে অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে চুরির ঘটনা। যার ফলে মহকুমাবাসির রাতের ঘুম উবে গেছে। বহু চুরির ঘটনা সম্পর্কে পুলিশকে জানানো হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এমতাবস্থায় এখন দেখার বুধবার রাতে ঘটে যাওয়া দুইটি চুরির ঘটনার কিনারা করতে সক্ষম হয় কিনা পুলিশ।

Post a Comment

0 Comments