About Me

header ads

স্বাধীনতা দিবসে নাশকতা রুখতে বাংলাদেশ সীমান্তে রেড অ্যালার্ট!

স্বাধীনতা দিবস পালিত হবে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকায় জারি রয়েছে লাল সতর্কতা। বিএসএফ ও বিজিবি তৎপর।

স্বাধীনতা দিবসে যে কোনও ধরনের নাশকতা ঠেকাতে সীমান্ত এলাকায় কঠোর নজরদারি চলছে। বাংলাদেশ লাগোয়া প.বঙ্গ, অসম, মেঘালয়, ত্রিপুরা, মিজোরাম রাজ্যের সীমান্তে চলছে সি সি টিভি নজরদারি ও টহল।

বাংলাদেশের দিনাজপুরের হিলি ভারতের দ. দিনাজপুরের সীমান্ত এলাকায় বাড়ানো হয়েছে বিএসএফের সদস্য সংখ্যা চেকপোস্টে ক্লোজসার্কিট ক্যামেরার মাধ্যমে দুই দেশে যাতায়াতকারীদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ ও তল্লাশি করা হচ্ছে।

নজরদারি চলছে জলপাইগুড়ি সংলগ্ন ফুলবাড়ি ও বাংলাদেশের বাংলাবান্ধা সীমান্তে। কোচবিহার লাগোয়া চ্যাংরাবান্ধা, উ.২৪ পরগনার পেট্রাপোল ও যশোরের বেনাপোল, ঘোজাডাঙ্গা-সাতখীরা, মালদার মহদীপুরেও বিশেষ সতর্কতা।

উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্য জঙ্গি হামলার আশঙ্কা থাকতো। বিভিন্ন বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র সংগঠনের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছেন গোয়েন্দারা।

মেঘালয়ের ডাউকি-বাংলাদেশের তামাবিল, ত্রিপুরা-বাংলাদেশের আখাউরা সীমান্তের একই ছবি। অসমের করিমগঞ্জ ও বাংলাদেশের জকিগঞ্জতে চলছে টহলদারি।

সম্প্রতি কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে এবং পশ্চিমবঙ্গসহ বিভিন্ন জায়গায় জঙ্গি ধরা পড়ায় ভারতের স্বাধীনতা দিবসে নাশকতা, হামলার আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে পেট্রাপোল ও হিলি চেকপোস্ট দিয়ে ভারত থেকে যাওয়া বাংলাদেশিরা জানিয়েছেন, শিয়ালদহ, হাওড়া রেলস্টেশন ও ধর্মতলা বাস টার্মিনালে প্রবেশে কড়াকড়ি করা হয়েছে। বালুরঘাটে ডগস্কোয়াড দিয়ে তল্লাশি করছে পুলিশ।

দুই দেশের গোয়েন্দা বিভাগ আগেই জানিয়েছে আল কায়েদা, আইএসের সঙ্গে বাংলাদেশের বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠন জড়িত। তারা নাশকতার জন্য মরিয়া। বিশেষ করে জেএমবি ও নব্য জেএমবি সংগঠন।

Post a Comment

0 Comments