About Me

header ads

পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সম্পন্ন অরুণ জেটলির!

শেষকৃত্য সম্পন্ন হল অরুণ জেটলির। পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদা এবং গান স্যালুটে সম্মান জানানো হয় বিজেপির এই প্রবীণ নেতাকে। বিজেপির সদর দফতর থেকে নিগমবোধ ঘাটে নিয়ে যাওয়া হয় ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা প্রয়াত অরুণ জেটলির মরদেহ।  শনিবার এইমস হাসপাতাল থেকে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় জেটলির বাসভবনে কৈলাশ কলোনিতে। আজ সকালে জেটলির মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বিজেপি সদর দফতরে। সেখানে জেটলিকে শেষশ্রদ্ধা জানান বহু নেতা, কর্মী, সমর্থকেরা। বর্ষীয়ান এই বিজেপি নেতার প্রয়াণে শোকস্তব্ধ রাজনৈতিক মহল। 
 
শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে ৯ অগাস্ট দিল্লির এইমসে ভর্তি হন অরুণ জেটলি। শনিবার ১২টা ৭ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বিজেপির এই বর্ষীয়ান নেতা। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর। অরুণ জেটলির প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ আরও অনেকে।

উল্লেখ্য, গত মে মাসেও এইমসে চিকিৎসাধীন ছিলেন জেটলি। ২০১৮ সালের ১৪ মে বিদেশে কিডনি প্রতিস্থাপন হয় জেটলির। সে সময় শারীরিক অসুস্থতার জেরে জেটলির অর্থমন্ত্রকের দায়িত্ব নেন পীযূষ গোয়েল। কেন্দ্রীয় বাজেটও পেশ করতে পারেননি জেটলি। তাঁর পরিবর্তে বাজেট পেশ করেন পীযূষ গোয়েল।

অরুণ জেটলির প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটারে মমতা লিখেছেন, ‘‘গভীরভাবে শোকাহত। সাংসদ হিসেবে দারুণ কাজ করেছিলেন। আইনজীবী হিসেবেও দুর্দান্ত কাজ করেছিলেন। ভারতীয় রাজনীতিতে ওঁর অবদান সকলে মনে রাখবেন’’।

শারীরিক অসুস্থতার জেরেই এবার লোকসভা নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি জেটলি। মন্ত্রীত্ব থেকেই অব্যাহতি নেন তিনি। প্রথম মোদী সরকারে জিএসটি ও নোট বাতিলের মতো সিদ্ধান্ত কার্যকরী করার ক্ষেত্রে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন জেটলি।

Post a Comment

0 Comments