About Me

header ads

‘কাশ্মীর জট কাটাতে মধ্যস্থতা করতে বলেছেন মোদী’, ট্রাম্পের এ দাবি ওড়াল দিল্লি !

কাশ্মীর সমস্যা মেটাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শরণাপন্ন হয়েছেন নরেন্দ্র মোদী! উপত্যকাকে ঘিরে ভারত-পাক সম্পর্কে থিতু আনতে মধ্যস্থতাকারী হতে ট্রাম্পকে অনুরোধ করেছেন নরেন্দ্র মোদী। মার্কিন প্রেসিডেন্টের এহেন দাবি ঘিরে বেজায় চটল নয়া দিল্লি। ট্রাম্পের এমন মন্তব্য সামনে আসার সঙ্গে সঙ্গেই ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে এমন কোনও আর্জি রাখেননি মোদী। বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রাভিশ কুমার টুইট করে জানান, ‘‘মার্কিন প্রেসিডেন্টকে এ ধরনের কোনও অনুরোধ করেননি নরেন্দ্র মোদী…’’। এদিকে, ট্রাম্পের দাবিকে হাতিয়ার করে আসরে নেমেছে বিরোধীরা। প্রধানমন্ত্রীর বিবৃতির দাবি তুলে সংসদে হইচই ফেলে দেন বিরোধীরা। রাজ্যসভায় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর বলেন, ট্রাম্পকে এমন কোনও অনুরোধ করেননি মোদী।

হোয়াইট হাউসে গতকালই পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসেন ট্রাম্প। সেই বৈঠকের পরই ট্রাম্প বলেন, ‘‘২ সপ্তাহ আগেই মোদীর সঙ্গে দেখা হয়েছিল। আমরা এ বিষয় (কাশ্মীর) নিয়ে কথা বলেছিলাম। উনি তখন বলেছিলেন, আপনি (ট্রাম্প) কি মধ্যস্থতাকারী হবেন? আমি বললাম, কীসের? তখন উনি বললেন কাশ্মীর সমস্যা মেটানোর জন্য। কারণ এই সমস্যা বছরের পর বছর ধরে রয়েছে। আমি খুব অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করলাম কতদিন ধরে রয়েছে এই সমস্যা’’। ট্রাম্প যখন একথা বলছেন, তখন তাঁর পাশে রয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও। ট্রাম্পের এই কথা শুনে ইমরান বললেন, ‘‘৭০ বছর ধরে এই সমস্যা রয়েছে’’।

উল্লেখ্য, কাশ্মীর ইস্যুতে ট্রাম্পের এহেন মন্তব্যের আগে ইমরান খান বলেন, ‘‘ উনি এ দুনিয়ার অত্যন্ত শক্তিশালী ব্যক্তি। আমেরিকা অত্যন্ত শক্তিশালী দেশ। উপমহাদেশে শান্তি স্থাপনে আমেরিকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে…আমার তরফ থেকে বলতে পারি, আমরা অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত আমরা কোনও রফাসূত্র বের করতে পারিনি। আশা করছি মার্কিন প্রেসিডেন্ট দু’দেশের সম্পর্ক মজবুত করতে উদ্যোগী হবেন’’।

এরপর ট্রাম্প আরও বলেন, ‘‘আমার মনে হয়, ওঁরা (ভারত-পাক) দু’জনেই চান, এ সমস্যা সমাধান হোক। আমার মনে হয়, আমরা সবাই তা চাই। আর আমি যদি সাহায্য করতে পারি, আমি মধ্যস্থতাকারী হতে রাজি’’। ট্রাম্পের এহেন মন্তব্য শোনার পর ইমরান বলেন, ‘‘যদি আপনি পারেন, তাহলে মধ্যস্থতা করে এ সমস্যার সমাধান করুন’’।

ইমরানের কথা শুনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন,‘‘এটা সমাধান হওয়া দরকার। উনিও আমাকে একই কথা বলেছেন। দেখা যাক, কী করতে পারি। কাশ্মীর সম্পর্কে অনেক কিছু শুনেছি। খুব সুন্দর নাম। বিশ্বের অন্যতম সুন্দর জায়গা এটা। কিন্তু এখন চারদিকে শুধু বোমা। যেখানেই আপনি যান, বোমা রয়েছে। ভয়ঙ্কর অবস্থা। যদি আমি কিছু সাহায্য করতে পারি, তাহলে আমাকে জানান’’।

Post a Comment

0 Comments