About Me

header ads

বাংলার মতোই ‘বিতর্কিত’ পঞ্চায়েত ভোটে অশান্তি ত্রিপুরায়!

আশঙ্কা সত্যি করেই ত্রিপুরায় পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিনও বিরোধী বাম ও কংগ্রেস কর্মী-ভোটারদের বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি দেওয়ার ছবি ও ভয়েস রেকর্ড। শনিবার নির্বাচনের দিন বেলা গড়াতেই বিভিন্ন পঞ্চায়েত এলাকায় ভোটারদের বাধা দেওয়ার ছবি ছড়িয়েছে। এতে অভিযুক্ত বিজেপি।
 
বিরোধীদের অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের মতো গায়ের জোরে ক্ষমতা দখল করতে মরিয়া ত্রিপুরার বিজেপি সরকার। প্রায় ৮৬ শতাংশ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী শাসক দল। যে ১৪ শতাংশ আসনে ভোট হচ্ছে তাকে ঘিরেও উঠতে শুরু করেছে ভোট কারচুপির অভিযোগ। প্রধান বিরোধী সিপিএমের পাশাপাশি অপর বিরোধী দল কংগ্রেসও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। তবে শাসক বিজেপির দাবি ভোট হচ্ছে শান্তিপূর্ণভাবেই। শনিবার এমনই পরিস্থিতিতে ত্রিপুরায় ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচন।

রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তথ্য:-
⦁ মোট ৬৬৪৬টি আসন। ৯৯৪টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে।
⦁ ৫৯১টি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৬১১১টি আসন। ভোট হবে ৮৩৩টি আসনে।
⦁ ৩৫টি পঞ্চায়েত সমিতির আসন সংখ্যা ৪১৯টি। ভোট হবে ৮২টি আসনে।
⦁ ৮টি জেলা পরিষদের ১১৬টি আসন। ভোট হবে ৭৯টি আসনে
 
বিধানসভা নির্বাচনের পর রাজ্যে ক্ষমতা হারায় দু দশকের বেশি সময় ধরে বাম সরকার। ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি ও উপজাতি সংগঠন আইপিএফটি জোট। আর লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের দুটি আসনেই জয়ী হয়েছে বিজেপি। তুমুল ভোট লুঠ ও খুনের হুমকি, রাজনৈতিক সংঘর্ষের ঘটনায় ত্রিপুরার পরিস্থিতি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের তথ্যেও ব্যাপক কারচুপি ধরা পড়ে। এরপরেই ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে থেকে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বারে বারে রক্তাক্ত হয়েছে ত্রিপুরা।

Post a Comment

0 Comments