About Me

header ads

জয় শ্রীরাম স্লোগান নিষিদ্ধ করুক রাজ্য, দাবি বিশ্ব হিন্দু পরিষদের!

জয় শ্রীরাম স্লোগান নিয়ে রাজ্য যখন উত্তাল, তখন জয় শ্রীরাম ধ্বনিকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানালো বিশ্ব হিন্দু পরিষদ (ভিএইচপি)। পরিষদ মনে করে, “জয় শ্রীরাম বললে যদি মারধর খেতে হয়, পুলিশ গ্রেপ্তার করে, তাহলে এই স্লোগান নিষিদ্ধ ঘোষণা করুক রাজ্য সরকার। তাতে আইনি ব্যবস্থা নিতে সুবিধে হবে।”

সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে মেদিনীপুরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয় যাওয়ার পথে জয় শ্রীরাম ধ্বনি শুনে গাড়ি থেকে নেমে পড়েছিলেন তিনি। নেমে হুঙ্কার ছেড়েছিলেন। তারপর ওই ঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছিল। মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য ছিল, তাঁকে উদ্দেশ্য করে “গালাগালি” দেওয়া হয়েছে। ৩০ মে নৈহাটিতে ধর্নায় অংশ নিতে যাওয়ার পথে ভাটপাড়ায় ফের মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় দেখে জয় শ্রীরাম স্লোগান দিতে থাকেন একদল মানুষ। মুখ্যমন্ত্রী গাড়ি থেকে নেমে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন পুলিশের বড়কর্তাদের। বিজেপির তরফে অভিযোগ, ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে জগদ্দল থানার পুলিশ। যদিও গ্রেপ্তারি নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। এবার এই জয় শ্রীরাম স্লোগান নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

কী বলছে এই হিন্দুত্ববাদী সংগঠন?
পূর্বাঞ্চলীয় সংগঠন সম্পাদক শচীন্দ্রনাথ সিনহা বলেন, “পশ্চিবঙ্গ সরকার জয় শ্রীরামকে নিষিদ্ধ করুক। আর নিষিদ্ধ না করে এভাবে যাকে তাকে যেখানে পারছে মারছে, গ্রেপ্তার করছে। জগদ্দলে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। বীরভূমে, বর্ধমানে এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে। সরকার নিষিদ্ধ করে দিক, তাহলে তো ঝামেলা হবে না। তারপর যা হওয়ার আইনগত ভাবে হবে। মানুষ জানবেন কী করে যে জয় শ্রীরাম নিষিদ্ধ!”
 
রাজ্যে সম্ভবত এখন সবচেয়ে আলোচিত শব্দবন্ধ জয় শ্রীরাম। বিজেপি কার্যত একে রাজনৈতিক স্লোগান হিসেবেই ব্যবহার করছে। মুখ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে স্লোগান দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়েছেন তিনি। তারপর থেকে এই স্লোগান নিয়ে আলোচনা বেড়েছে। সোশ্যাল মিডিয়া জুড়েও ওই একই চর্চা। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের বক্তব্য, “ভগবানের নাম করা নিষিদ্ধ ঘোষণা করুক। তাহলে সাধারণ মানুষ করবেন না। নিষিদ্ধ না হলে সাধারণ মানুষ যেখানে সেখানে বলবেন। তাহলে কেন তাদের হয়রান করা হচ্ছে? পশ্চিমবঙ্গে জয় শ্রীরাম নিষিদ্ধ না করে কেন গ্রেপ্তার করা হচ্ছে?” প্রশ্ন তুলেছেন শচীন্দ্রনাথ সিনহা।

জয় শ্রীরামকে শুধু নিষিদ্ধ ঘোষণার দাবি করেই ক্ষান্ত থাকেন নি ভিএইচপির পূর্বাঞ্চলীয় সংগঠন সম্পাদক। শচীন্দ্রনাথবাবু রীতিমত চ্যালেঞ্জ ছুড়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। তাঁর কথায়, “পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী দেশের অন্য কোনো প্রান্তে গিয়ে বলুন তো, যে জয় শ্রীরাম গালাগালি। তাহলে ওখানে থাকতে পারবেন কি না? ভারতের সব রাজ্যে বলা যাবে, অথচ বাংলায় আমরা এটা করতে দেব না। সারা ভারতে এটা ধার্মিক স্লোগান, পশ্চিমবঙ্গে এটা রাজনৈতিক স্লোগান। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ সহিষ্ণুতা দেখাচ্ছেন বলে উনি অসহিষ্ণুতা দেখাচ্ছেন।”

বৃহস্পতিবার নৈহাটিতে ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরাতে ধর্না কর্মসূচি পালন করে তৃণমূল। ওই মঞ্চে বক্তব্য রাখতে গিয়ে জয় শ্রীরাম স্লোগান প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী দলের নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন জয় হিন্দ শ্লোগান দেওয়ার। জয় হিন্দ প্রসঙ্গে শচীন্দ্রনাথবাবু বলেন, “আমরাও তো জয় হিন্দ বলে থাকি। জয় শ্রীরামের সঙ্গেই জয় হিন্দ বলব। আমরা জয় হিন্দকে সমর্থন করি। আমাদের মধ্যে অসহিষ্ণুতা নেই।”