About Me

header ads

মোদির হেলিকপ্টারে তল্লাশি, নির্বাচন কমিশন বরখাস্ত করল আইএএস অফিসারকে!

“এসপিজি (স্পেশ্যাল প্রোটেকশন গ্রুপ) সুরক্ষাপ্রাপ্ত” ব্যক্তির ক্ষেত্রে কর্তব্যে অবহেলার দায়ে ওড়িশায় ডেপুটেশনে থাকা উচ্চপদস্থ নির্বাচনী পর্যবেক্ষককে বরখাস্ত করল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। উল্লেখ্য, এখানে এসপিজি সুরক্ষাপ্রাপ্ত ব্যক্তি অর্থে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
 
কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী, কর্ণাটক ক্যাডারের আইএএস অফিসার মহম্মদ মহসিনকে ১৬ এপ্রিল “এসপিজি সুরক্ষাপ্রাপ্তদের ক্ষেত্রে কমিশনের নির্দেশের বিরুদ্ধে গিয়ে কাজ করার” জন্য বরখাস্ত করা হয়েছে। সেদিনই এসপিজি সুরক্ষাপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্বলপুরে এক নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দেন।
 
স্থানীয় অধিকারিকদের বক্তব্য, সাধারণ পর্যবক্ষেক হিসেবে তাঁর পদাধিকার বলে মহসিন প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার পরীক্ষা করার চেষ্টা করেন।
 
ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত ওড়িশা সরকারের এক পদস্থ আধিকারিকের কথায়, “পিএম তাঁর ভাষণ শুরু করে দিয়েছিলেন। সেইসময় মহসিন হেলিকপ্টারের পাশে দাঁড়ানো এসপিজি কর্মীদের কাছে এসে হেলিকপ্টার তল্লাশি করতে চান। এসপিজি কর্মীরা তল্লাশির কাগজপত্র দেখতে চান। শেষমেশ তল্লাশির অনুমতি দেওয়া হয়, কিন্তু এর ফলে প্রধানমন্ত্রীর হেলিকপ্টার ছাড়তে ২০ মিনিট দেরি হয়ে যায়।”
 
ওই আধিকারিক আরও বলেন, “যতদূর জানি, সাধারণ পর্যবক্ষেক স্রেফ পর্যবক্ষেণ করেন এবং কমিশনকে রিপোর্ট দেন। পরিদর্শনের আদেশ দেওয়ার অধিকার তাঁর নেই।”
 
তাঁর LinkedIn প্রোফাইল থেকে জানা যায়, মহসিন বর্তমানে কর্ণাটকের অনগ্রসর শ্রেণী কল‍্যাণ বিভাগে সচিব হিসেবে কর্মরত। কমিশনের ওয়েবসাইট অনুযায়ী, তাঁঁকে ৪ এপ্রিল থেকে ২৩ মে পর্যন্ত সম্বলপুর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত কুচিন্দা, রেঙ্গালি, সম্বলপুর এবং রায়রাখোল বিধানসভা আসনে সাধারণ পর্যবক্ষেক নিযুক্ত করা হয়। কমিশনের নির্দেশে উল্লেখ করা হয়েছে যে মহসিন “কমিশনের নিয়ন্ত্রণে এবং তত্ত্বাবধানে” কাজ করবেন।
 
বরখাস্তের নির্দেশে বলা হয়েছে, ওড়িশার মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক, সম্বলপুরের জেলা নির্বাচনী আধিকারিক, এবং সম্বলপুরের ডিআইজি-র রিপোর্টের ভিত্তিতে মহসিনকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু এঁদের মধ্যে কারোর সঙ্গেই ফোনে বা মেসেজে যোগাযোগ করা যায় নি।
 
এদিকে, কমিশনের নির্দেশ জারি হওয়ার আগেই প্রকাশ পায় সম্ভবত সোমবারে রেকর্ড করা একটি ভিডিও, যাতে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধানকে কিছু পুলিশ অফিসারের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করতে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, ওই অফিসারদের নিয়ে ওড়িশায় গঠিত ফ্লাইং স্কোয়াড মন্ত্রীর মালপত্র পরীক্ষা করার অনুমতি চেয়েছিল।
 
অন্যদিকে, ওড়িশা থেকেই প্রকাশ্যে এসেছে আরও একটি ভাইরাল ভিডিও, যাতে দেখা যাচ্ছে, রাউরকেলায় ফ্লাইং স্কোয়াড পরিদর্শন করছে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের হেলিকপ্টারের। তাঁর উপস্থিতিতেই চলছে খুঁটিয়ে পর্যবক্ষেণ, তিনি শান্তভাবে বসে আছেন কেবিনে। ভিডিওতে প্রথমে দেখা যাচ্ছে, সদ্য অবতীর্ণ হেলিকপ্টারের দিকে এগিয়ে আসছেন একদল লোক। তাঁদের মধ্যে একজন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন, যার পর পট্টনায়ককে দেখা যায় কেবিন থেকে বেরোনোর চেষ্টা করতে, কিন্তু তাঁর নিরাপত্তা রক্ষীদের অনুুুরোধে মুখ্যমন্ত্রীকে ভেতরে রেখেই চলে তল্লাশি।