About Me

header ads

“ইডি-র জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন আমি কারোর নাম উল্লেখ করিনি”, আদালতকে বললেন মিশেল!

অগুস্তা ওয়েস্টল্যান্ডে কাণ্ডে অভিযুক্ত ক্রিসচিয়ান মিশেল শুক্রবার দিল্লি আদালতকে জানিয়েছে ইডি-র জিজ্ঞাসাবাদের সময়ে একজনেরও নাম উল্লেখ করেননি তিনি। সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট তাঁকে না দেখিয়েই প্রকাশ্যে এনেছে সংস্থা। মিশেলের আবেদন শুনে আদালতের বিশেষ বিচারপতি অরবিন্দ কুমার একটি নোটিশ জারি করে শনিবারের মধ্যে ইডি-র কাছে জবাব চেয়েছে এই প্রসঙ্গে।

ক্রিসচিয়ান মিশেলের আইনজীবী আলজো কে জোসেফ জানিয়েছেন, “তদন্তকারী সংস্থার তরফে আমার মক্কেলকে চুক্তির সঙ্গে যুক্ত থাকা ব্যক্তিদের নামের আদ্যাক্ষর উল্লেখ করতে বলা হয়েছিল, আমার মক্কেল সেটুকুই শুধু করেছে। গণমাধ্যম যে সমস্ত নাম প্রকাশ করেছে, সে সব আদৌ বলেননি মিশেল”।

মিশেলের বিবৃতি থেকে আইডি এই সিদ্ধান্তে এসেছে ‘এপি’ এবং ‘ফ্যাম’ বলতে যথাক্রমে আহমেদ পাটেল এবং ফ্যামিলি বোঝানো হয়েছে।কী ভাবে চার্জশিট ফাঁস হল, ইডি-র কাছে আদালতকে সেই প্রশ্ন রাখতে বললেন জোসেফ। আদালত জানিয়েছে ইডি-র সঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদের পর সিদ্ধান্তে আসা যাবে, অভিযুক্তদের শমন পাঠানো হবে কিনা।গত বৃহস্পতিবার ফাইল করা চার্জশিটে অভিযুক্তদের তালিকায় তিনজনের নাম যুক্ত হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ৪১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে চার্জশিটে।
 
চার্জশিটে উল্লেখ থাকা অভিযোগ অস্বীকার করে জোসেফ বলেন, “আইডি স্বচ্ছ বিচার প্রক্রিয়ায় বিশ্বাস করে না, শুধু গণমাধ্যমের ওপর আস্থা রাখে। অথচ অভিযুক্তের তো নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার সমস্ত অধিকার রয়েছে”। “দেশের বিচার ব্যবস্থাকে রীতিমতো উপহাস করছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টওরেট”, বললেন জোসেফ।

এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেটের শেষ চার্জশিট বলছে অগুস্তা ওয়েস্টল্যান্ড কাণ্ডে গণমাধ্যমকে প্রভাবিত করতে গাই ডগলাসকে ভাড়া করা হয়েছিল। এই সূত্রে মানু পাব্বি এবং শেখর গুপ্তার নাম উল্লেখ করেছেন ক্রিসচিয়ান মিশেল। প্রসঙ্গত, এই দু’জনেই সেই সময় ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। পিএমএলএ -র ৫০ নম্বর ধারায় মিশেল জানিয়েছেন অগাস্টা ওয়েস্টল্যান্ড কাণ্ড ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল।