About Me

header ads

‘বিচারব্যবস্থার স্বাধীনতা খর্ব করার ষড়যন্ত্র চলছে’

দেশের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ওঠা যৌন হেনস্থার অভিযোগ প্রসঙ্গে এক আইনজীবী জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে আসলে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। অভিযোগের স্বপক্ষে সমস্ত প্রমাণ জমা দিতে বলেন ওই আইনজীবী। সেই লক্ষে বুধবার সিবিআই ডিরেক্টর, আইবি ডিরেক্টর এবং দিল্লি পুলিশ কমিশনারকে আদালতে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

অরুণ মিশ্র, আর এফ নারিমান এবং দীপক গুপ্তের বেঞ্চকে একটি খাম বন্দি প্রমাণ জমা দিয়েছে বিচারপতি উৎসব বেইনস।

তবে আদালত স্পষ্ট জানিয়েছে এর সঙ্গে ইতিমধ্যে শুরু হওয়া তদন্তের সম্পর্ক নেই। বিচারপতি মিশ্র জানিয়েছেন, “বিচারব্যবস্থার স্বাধীনতার বিষয় এটা, খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়”।

আদালতে জমা দেওয়া হলফনামায় বেইন্স জানিয়েছেন, “বিশ্বস্ত সূত্রে খবর টাকার বিনিময়ে কিছু লোক এই ঘটনা সাজিয়েছেন”। বিচারকদের বেঞ্চ বলে, “আদালতের সঙ্গে এক সময়ে যুক্ত থাকা দুটি মানুষ এই গভীর ষড়যন্ত্রের সঙ্গে রয়েছে, যা খুবই দুঃখজনক”।
 
আদালত বলেছে, “এই প্রথম কোনও প্রধান বিচারপতি এই আঁতাত প্রকাশ্যে আনতে চাইছেন। এর বিরুদ্ধে যদি তিনি উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে চান, সেই স্বাধীনতা রঞ্জন গগৈ-এর রয়েছে”।
 
সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা এই প্রসঙ্গে বিশেষ তদন্তকারী দলের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন। “বিষয়টি নিয়ে গভীরে গিয়ে তদন্ত হওয়া দরকার। যেহেতু ঘটনার সঙ্গে কোর্ট রেজিস্ট্রির সদস্যও জড়িয়ে, তাই তদন্ত হওয়া দরকার আপনারদের বেঞ্চের অধিনেই”।

প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ওঠা যৌন হেনস্থার অভিযোগ প্রসঙ্গে রঞ্জন গগৈ বলেন, “বিচারব্যবস্থার স্বাধীনতা খর্ব করার জন্য বড় একটা শক্তি কাজ করে চলেছে”।